মেইন ম্যেনু

দারুচিনির দারুণ গুণ

ফারিন সুমাইয়া : রান্না করার আনুষাঙ্গিক মশলার ভিড়ে দারুচিনি চেনা একটি নাম। নাম জানলেও এর গুণাবলি সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা। প্রাচীনকাল থেকেই এর ব্যবহার উল্লেখযোগ্য। জার্মানের একটি গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে যে দারুচিনি রান্নার কাজে ব্যবহারের সাথে সাথে স্বাস্থ্যের জন্যও খুব উপকারী। চলুন এর উপকারী গুণাবলী জেনে নেই-

শরীরে তাপ উৎপন্ন করে
দারুচিনিতে বিদ্যমান গুণাবলীর মাঝে তাপ উৎপন্ন অন্যতম। ইরানি একটি গবেষণায় দেখা গেছে, দারুচিনি আপনার শরীরের জ্বালাপোড়া, সাথে পেশীতে ব্যথা থাকলে তা দূর করে। তাছাড়া এটি শরীরকে বিভিন্ন ব্যথার হাত থেকে মুক্তি দেয়, যেমন পিএমএস পেইন, এলার্জি সম্পর্কিত ব্যথা।

মস্তিষ্ক সচল রাখে
সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে, দারুচিনি সাথে মস্তিষ্কের কার্যকারিতা অনেকাংশে জড়িত। নিয়মিত অল্প করে দারুচিনি খেলে আপনার স্মৃতিশক্তি এবং দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

স্বর ভাঙ্গা দূর করে
যাদের প্রায়ই গলার স্বর ভেঙ্গে যায় তারা দারুচিনি খেতে পারেন কিংবা এর তৈরি পেস্ট ব্যবহার করতে পারেন গলায়। এ জন্য কয়েকটি দারুচিনি নিন, তা পানির সাথে বেশ কিছুক্ষণ চুলার উপর রাখুন। পেস্টের মতো হয়ে এলে নামিয়ে এনে ঠান্ডা করে তা গলায় মাখিয়ে কাপড় দিয়ে পেচিয়ে রাখুন। গলাব্যথা এবং স্বর ভাঙ্গা দুই-ই দূর হবে।

মুখের বাজে গন্ধ দূর করে
দারুচিনি আপনার মুখকে ব্যাক্টেরিয়ার হাত থেকে রক্ষা করে। যা দাঁতের ক্ষয়রোধ করে, ক্যাভেটিজ থেকে দূরে রাখে এবং মুখে বাজে গন্ধ সৃষ্টি হতে দেয় না। দারুচিনি থেকে তৈরি তেল এক্ষেত্রে খুব উপকারী, এটি প্রাকৃতিকভাবে মুখকে বাজে গন্ধ থেকে রক্ষা করে। এছাড়া চুইংগামেও দারুচিনি ব্যবহার করা হয়।

ত্বকের যত্ন নেয়
দারুচিনি থেকে তৈরি তেল ত্বকের এলার্জি, দাহ্যতা, এবং বিভিন্ন ত্বকে তৈরি সমস্যা থেকে রক্ষা করে। মধুর সাথে দারুচিনি মিশিয়ে ব্যবহার করলে তা দ্রুত কাজ করে। যা আপনাকে ত্বকে তৈরি সমস্যা থেকে খুব জলদি আরাম প্রদান করে।

খারাপ কোলেস্টারেল থেকে মুক্তি দেয়
আমরা প্রায়ই বাইরে খাওয়া-দাওয়া করে থাকি। যা আমাদের শরীরে খারাপ কোলেস্টারেলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। দারুচিনি খেলে এই খারাপ কোলেস্টারেলের মাত্রা ধীরে ধীরে কমতে থাকে এবং আপনি পান সুস্থ একটি স্বাভাবিক জীবন।