মেইন ম্যেনু

দাড়ি কাটলেই ১০০ ডলার জরিমানা করছে আইএস

বিশ্বের এক নম্বর সন্ত্রাসী সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) চাপের মুখে পড়েছে। ইরাক ও সিরিয়াতে তাদের দখল কমছে। অর্থ ভাণ্ডার ধ্বংস হয়ে গেছে। অর্থের জন্য নানান ধরনের ব্যাবসার পাশাপাশি এবার অদ্ভুত সব কর ও জরিমানা আরোপ করতে শুরু করেছে তারা। যেমন কেউ যদি দাড়ি কেটে ফেলে তাহলে তাকে ১০০ মার্কিন ডলার জরিমানা দিতে হবে।

শুধু পুরুষের দাড়ির উপরেই না, যদি কোন নারীর শরীরে আঁটসাঁট অবস্থায় বোরকা দেখা যায় তাহলে তাকেও ২৫ ডলার জরিমানা দিতে হবে। আইএসের উপর প্রকাশিত নতুন একটি প্রতিবেদনে এমনই সংবাদ জানানো হয়েছে।

অর্থনৈতিক সঙ্কটের কারণেই আইএস তাদের দখলকৃত অঞ্চলগুলোতে বিভিন্ন নতুন নতুন ইস্যুতে কর ও জরিমানা বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছে। আইএইচএস নামের একটি গবেষণাধর্মী কোম্পানি তাদের ইরাক এবং সিরিয়ার স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের ভিত্তিতে এই খবর জানিয়েছে।

আইএইচএসের একজন বিশ্লেষক জানিয়েছেন, গত ৬ মাস ধরে আইএস তাদের খেলাফত অঞ্চলগুলোতে নতুন ইস্যুতে কর বৃদ্ধি শুরু করেছে।যদি কোন পুরুষ দাড়ি কেটে ক্লিন শেভ করে তাহলে তার জন্য ১০০ ডলার এবং যদি কেউ দাড়ি ছাঁটে তাহলে ৫০ ডলার জরিমানা দিতে হবে।কোন পুরুষ যদি লম্বা জোব্বা না পরে তাহলে ৫ ডলার জরিমানা।

কোন নারী আঁটসাঁট বোরকা পরে শরীরের আকৃতি প্রদর্শন করলে তার ২৫ ডলার জরিমানা দিতে হবে। কোন নারীর চোখ যদি প্রকাশ্যে দেখা যায় তাহলে তাকে ১০ ডলার অথবা ২৪ ক্যারেট স্বর্ণের ১ গ্রাম স্বর্ণ জরিমানা দিতে হবে। হাত ও পায়ে মোজা না পরলে ৩০ ডলার। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, কোন পুরুষের কাছে সিগারেট পেলে ৪৬ ডলার জরিমানা, নারীর ক্ষেত্রে এটা ২৩ ডলার জরিমানা।

২০১৫ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে আইএস তার নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার ২২ শতাংশ হারিয়েছে। সেই সাথে ধ্বংস হয়ে গেছে তার অর্থ ভাণ্ডার। যে ব্যাপক কর্মকাণ্ডে তারা জড়িয়েছে সেখানে প্রতিমুহূর্তে তাদের প্রয়োজন হাজার হাজার ডলার। সেই সঙ্কট পুরোতেই তাদের এই প্রচেষ্টা।