মেইন ম্যেনু

দিনাজপুর সীমান্তে গুলিঃ ৪ দিনেও সন্ধান নেই আইয়ুবের!

শাহ্ আলম শাহী, স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ধর্মপুর ডুংডুংগি সীমান্তে বিএসএফ এর গুলি বর্ষনের ঘটনার পর নিখোঁজ রয়েছে এক বাংলাদেশী। ঘটনার ৪ দিন অতিবাহিত হলেও খোঁজ মিলেনি নিখোজ ব্যক্তি। নিখোঁজ পরিবারে চলছে শোকর মাতম।

এ ব্যাপারে বিজিবি’র পতাকা বৈঠকে সারা দেয়নি বিএসএফ। ওই ব্যক্তিকে বিএসএফ হত্যা করেছে বলে নিখোঁজ পরিবার দাবী করছে।

গত ২৭ জুন সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ২ টার সময় বিরল উপজেলার ধর্মপুর ডুংডুংগি সীমান্তের ৩২৫/৩ আর পিলারের অভ্যন্তওে ভারতের বিএসএফ কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষন করে। এ গুলির শব্দ শুনতে পায় সীমান্তবাসী। এসময় ১০/১২ জনের বাংলাদেশী একটি দল ভারতে প্রবেশ করেছিল বলে বিএসএফ এর পক্ষ থেকে দাবী করা হয়। তাদের আটক বা থামতে বললে তারা পালিয়ে যায়।

এসময় বিএসএফ গুলি বর্ষন করে। এই ১০/১২ জনের দলের মধ্যে আইয়ুব আলী(৩৫) পিতা-আফাজ উদ্দিন, বিরল, ধর্মপুর বিরলা এ রিপোর্ট লেখা সময় পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। আইয়ুব আলী এক সন্তানের জনক। সীমান্তের বসবাসকারীরা জানায়, বাংলাদেশীরা ভারতে প্রবেশ করেনি। বিএসএফ নিজেদের রক্ষা করতে এই মিথা অজুহাত দেখাচ্ছে। তারা সব সময়ই অহেতুক বাংলাদেশীদের নানা অভিযোগ দিয়ে হত্যা করে। কিন্তু এই হত্যার কোন বিচার হয়না।

দিনাজপুর বিজিবি সেক্টরের ৪২ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কঃ আবেদিন জানান, আমাদের সীমান্ত বিওপি ডুংডংগি জোয়ানরা ভারত সীমান্তের ভিতরে বিএসএফ এর গুলি বর্ষনের শব্দ পায়। বিএসএফ কেন গুলি বর্ষন করলো এবং কাকে কেন্দ্র করে করলো তা জানার চেষ্টা করছি।

তবে এই গুলি বর্ষনের কারনে কেউ মারা গেছে কিনা বা নিখোজ বা বিএসএফ কর্তৃক আটক হয়েছে কিনা জানতে পারিনি। তবে আমরা চেষ্টা করছি বিষয়টি জানার জন্য। কারন সীমান্ত এলাকায় যেহেতু গুলি বর্ষন হয়েছে। এদিকে ডুংডুংগি সীমান্ত ফাঁড়ীর পক্ষ থেকে ভারতের ৪১ বিএসএফ সাতিমারী ক্যাম্পে পতাকা বৈঠকের চিঠি দিলেও বিএসএফ কোন গুরুত্ব দেয়নি। ফলে বিষয়টি নিয়ে বিজিবি কোন সস্তোষজনক অবস্থায় এগুতে পারছেনা।

এব্যাপারে সীমান্তের বসবাসকারীরা জানান, বিএসএফ এর গুলিতে সম্ভবতঃ আইয়ুব আলী নিহত হয়েছে।‘ বিএসএফ লাশ গায়েব করে দিয়েছে। তবে এব্যাপারে কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। নিখোজ পরিবারে শোকের মাতম চলছে। ডুংডুংগি সীমান্ত এলাকায় সাধারন মানুষের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

সীমান্তের বসবাসকারীরা জানায়, সীমান্তে সম্প্রতি বিএসএফ এর অত্যাচার বেড়ে গেছে। আইয়ুব আলীর স্ত্রী আফরোজা বেগম তার স্বামী নিখোঁজের কথা স্বীকার করেছেন। বলেছেন,৪ দিন অতিবাহিত হলেও তিনি ফিরেনি বাড়ি।