মেইন ম্যেনু

দুইজন দুই ধর্মের, স্বীকৃতি না পেয়ে একই রশিতে ফাঁস!

দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় একই সঙ্গে একই রশিতে ফাঁস দিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকা আত্মহত্যা করেছে। দুইজন ভিন্ন ধর্মের হওয়ায় সামাজিকভাবে প্রেমের স্বীকৃতি না পাওয়ায় তারা আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করছে পুলিশ ও স্থানীয়রা।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে পুলিশ তানের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

নিহতরা হলো দিনাজপুরের বিরল উপজেলার সাকোইর গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে রাকিব বাবু (১৬) এবং একই উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের মৃত হরিপদ পালের মেয়ে পূর্ণিমা রানী পাল (১৫)।

রাকিব বাবু বিরল উপজেলার রঘুপুর দ্বিমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের ভোকেশনাল শাখার দশম শ্রেণির ছাত্র এবং পূর্ণিমা রানী একই বিদ্যালয়ের ভোকেশনাল শাখার নবম শ্রেণির ছাত্রী।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, একই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হওয়ার সুবাদে গত তিন বছর ধরে প্রেম চলছিল পূর্ণিমা ও রাকিব বাবুর মধ্যে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর দুজন দুই ধর্মের হওয়ায় পারিবারিকভাবে তাদের শাসনও করা হয়।

একপর্যায়ে গতকাল বুধবার বিকেলে স্কুল ছুটির পর দুজনই উধাও হয়ে যায়। রাতে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তাদের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার বিরল উপজেলার সাকোইর গ্রামের ফুলদিঘী নামক স্থানে বাঁশঝাড়ের কাছে একটি আম গাছে একসঙ্গে একই রশিতে দুজনের ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পেয়ে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়।

দুপুর ১২টার দিকে দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে পুলিশ ঝুলন্ত মরদেহ দুটি উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

বিরল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ হোসেন জানান, তাদের ধারণা এটি আত্মহত্যা। উভয়ের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক থাকার কথা উল্লেখ করে ওসি বলেন, যেহেতু দুজন দুই ধর্মের, সেহেতু তারা সামাজিকভাবে পায়নি প্রেমের স্বীকৃতি। এ বিষয়টি মাথায় রেখে তদন্ত চলছে বলে জানান ওসি।






মন্তব্য চালু নেই