মেইন ম্যেনু

দুই বছর পর সিরিজ হারলো বাংলাদেশ

২০১৪ সালের নভেম্বরে শুরু হয়েছিল এই জয়যাত্রা। অবশেষে এসে থামল ২০১৬ সালের অক্টোবরে। টানা প্রায় দুই বছর পর ওয়ানডেতে কোনো সিরিজ হারল বাংলাদেশ। ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলকে হারানো গেলেও পারা গেল না ইংল্যান্ডকে। বুধবার সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে বাংলাদেশ হেরে গেল ৪ উইকেটে।

বাংলাদেশের দেওয়া ২৭৮ রানের লক্ষ্যটা এক রকম অনায়াসে ছুঁয়ে ফেলল ইংল্যান্ড। ৪৭তম ওভারের পঞ্চম বলে ইংল্যান্ড জিতল বটে, তবে ইংল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের সময় একবারও মনে হয়নি, ম্যাচটা তারা হারতে পারে। জিততে হলে চট্টগ্রামের এ মাঠে রান তাড়া করে জেতার নতুন রেকর্ড গড়তে হতো। কন্ডিশন এতটাই ইংলিশদের দিকে হাত মেলে দিল, বাংলাদেশের বোলাররা হয়ে গেল নির্বিষ। ইংল্যান্ড রেকর্ড গড়েই জিতল ম্যাচ। প্রতিপক্ষের মাঠে তৃতীয় বৃহত্তম রান তাড়া করা জয় এটি ইংল্যান্ডের জন্য।

বাংলাদেশ আক্ষেপ করতে পারে, ব্যাটিংয়ে আরও ২০-৩০ রান হয়তো বেশি তোলার সুযোগ ছিল। এ নিয়ে আক্ষেপ না হলেও বাংলাদেশের নিশ্চিত আক্ষেপ হবে সিরিজের প্রথম ম্যাচ নিয়ে। ৫২ বলে ৩৯ রান দরকার, হাতে ৬ উইকেট-এই সমীকরণও মেলাতে পারেনি বাংলাদেশ। সিরিজ জয়ের জন্য চট্টগ্রাম পর্যন্ত তো আসতেই হয় না!

তবু আক্ষেপ ঝেড়ে দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানো বাংলাদেশকে আজ ব্যাটিংয়েও বেশ উজ্জীবিত মনে হয়েছে। কিন্তু তখনো বোঝা যায়নি, ম্যাচটা এত সহজে জিতে যাবে ইংল্যান্ড! টানা ছয়টি সিরিজ জেতার পর অবশেষে হারের মুখ দেখতে হলো মাশরাফি বিন মুর্তজার দলকে। এই ম্যাচেই মাশরাফি বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উইকেট (২১৬টি) নেওয়ার রেকর্ড গড়েছেন। কিন্তু অধিনায়কের বিমর্ষ মুখটাই দেখতে হলো।

টেস্টে মাশরাফি থাকছেন না। কিন্তু তাঁর লড়াইয়ের প্রেরণা খুব দরকার। ২০ অক্টোবর থেকে শুরু হবে দুই টেস্টের সেই সিরিজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৭৭/৬ (তামিম ৪৫, ইমরুল ৪৬, সাব্বির ৪৯, মাহমুদউল্লাহ ৬, মুশফিক ৬৭*, সাকিব ৪, নাসির ৪, মোসাদ্দেক ৩৮; রশিদ ৪/৪৩, স্টোকস১/২৪, আলী ১/৪২)

ইংল্যান্ড: ৪৭.৫ ওভারে ২৭৮/৬ (ভিন্স ৩২, বিলিংস ৬২, ডাকেট ৬৩, বেয়ারস্টো ১৫, স্টোকস ৪৭*, বাটলার ২৫, আলী ১, ওকস ২৭*; মাশরাফি ২/৫১, শফিউল ২/৬১, সাকিব ০/৪৫, তাসকিন ০/৪৬, নাসির ১/৫৩, মোসাদ্দেক ১/২২)
ফল: ইংল্যান্ড ৪ উইকেটে জয়ী।
সিরিজ: ইংল্যান্ড ২-১ ব্যবধানে জয়ী।