মেইন ম্যেনু

দুই মাথা, এক দেহ : একজন ভাই, আরেকজন বোন

এক ছেলে এবং এক মেয়ের পর তৃতীয়বার সন্তানসম্ভবা হয়ে খুবই উত্তেজিত ছিলেন ২৪ বছর বয়সী শিবরাজ দেবী। একইরকম ভাবে তৃতীয়বার বাবা হওয়ার আশায় প্রবল আনন্দে মেতেছিলেন ৩০ বছরের ছোট্টু সিং। বুধবার যমজ সন্তানের জন্ম দিলেন শিবরাজ। আর তারপরেই দেখা দিল যাবতীয় সমস্যা।

মুহূর্তের মধ্যে উধাও হয়ে গেল যাবতীয় আনন্দ। শিবরাজ দেবীর গর্ভ থেকে ভূমিষ্ঠ যমজ দুই সন্তানের দেহ একটি। যমজ দুই জনের একজন ছেলে এবং একজন মেয়ে। তাদের দুই জোড়া হাত থাকলেও পা রয়েছে একজোড়া। ওই দুই জনের শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বেশকিছু অঙ্গও রয়েছে একটি করে।

ভারতের বিহার রাজ্যের বক্সার জেলার বেসরকারি একটি হাসপাতালে ওই যমজ সন্তানের জন্ম হয়। পরিস্থিতি প্রতিকূল হওয়ায় তাদের চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. রাজ কুমার গুপ্তা বলেন, ‘তলপেটের নীচ থেকে তাদের অঙ্গ সব একসঙ্গে জুড়ে রয়েছে। একজনের যৌনাঙ্গ দেখে বোঝা যাচ্ছে সে মেয়ে। অন্য জনের যৌনাঙ্গ এখনও দেখা যায়নি। তবে মনে হচ্ছে অপরটি ছেলে।’

সদ্যজাত এক শরীরের দুই সন্তানের শারীরিক অবস্থা একটু স্থিতিশীল হলে তাদের তিন ঘণ্টা দূরত্বের একটি বড় হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু উপযুক্ত চিকিৎসার জন্য তাদের দিল্লিতে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন সেখানকার চিকিৎসকরা। নিম্নবিত্ত পরিবারে জন্মানো ওই দুই শিশুর চিকিৎসার খরচ চালানোর মতো অবস্থা নেই কারখানার শ্রমিক ছোট্টু সিংয়ের। সেই কারণে সন্তানদের বাড়ি নিয়ে যেতে চাইছেন ছোট্টু-শিবরাজ।

ছোট্টু সিং জানান, গর্ভবতী অবস্থায় সবধরনের পরীক্ষা এবং চিকিৎসকের যাবতীয় পরামর্শ মেনে চলেছিল শিবরাজ। একবারের জন্যেও বোঝা যায়নি যে শিবরাজের গর্ভে বড় হচ্ছে যমজ সন্তান।