মেইন ম্যেনু

দুদকের কাজ হয়ে গেছে দায়মুক্তি দেয়া

চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য ও জাসদের বিদ্রোহী কমিটির কার্যকরী সভাপতি মঈনুদ্দিন খান বাদল বলেছেন, দুর্নীতির বিচার করার জন্য দুদক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। কিন্তু এখন দুদকের কাজ হয়ে গেছে দায়মুক্তি দেয়া। ২০১৫ সালেও ৪২১ জন ও ২০১৪ সালে ৪৯৯ জনকে দায়মুক্ত দিয়েছে দুদক।

মঙ্গলবার (২১ জুন) জাতীয় সংসদে ২০১৬-১৭ বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। এরআগে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হয়।

একের পর এক ব্যাংক কেলঙ্কারির বিচার হচ্ছে না অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘রিজার্ভ চুরির ঘটনায় মামলা হলেও তার কোন অগ্রগতি নেই। শেয়ার বাজার, হলমার্ক, বেসিক ব্যাংক, বিসমিল্লাহ গ্রুপ, ডেসটিনির অর্থ জালিয়াতদের কোনো বিচার হয়নি। এই অর্থের কুমিররা আইনকে গ্রাস করতে পারে। বাস্তবে বাংলাদেশ তাই দেখছে। স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ থেকে গড়ে ৩ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে। যা দেশের উৎপাদনের ৩০ দশমিক ৪ শতাংশ। প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে গড়ে ৮০ কোটি ডলার পাচার হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মোট সম্পদের ৪৭ ভাগ সম্পদের মালিক ১০ শতাংশ মানুষ। নিম্নের দিকের মানুষের কাছে সম্পদের পরিমাণ ৩০ শতাংশ। দুই কারণে এই আয় বৈষম্য বাড়ছে। প্রথমত, অর্থবহ কর্মসংস্থান বৃদ্ধি করা যাচ্ছে না, কারণ মান সম্পন্ন শিক্ষার বৈষম্যের ফলে ভালো কাজের সুযোগ কম। দ্বিতীয়ত, নীচের দিকের ৪০ শতাংশ গরীব মানুষকে সামাজিক সুরক্ষার আওতায় সুবিধা দিয়ে চরম দারিদ্র থেকে বাচিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে, ফলে তাদের জন্য অর্থবহ কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাচ্ছে না।

সাম্প্রতিক গুপ্তহত্যার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে মঈনুদ্দিন খান বাদল বলেন, ‘গুপ্তহত্যাকারীরা কারা? শুনেছি তাদের তিনজনের মধ্যে একজন মাদরাসার ছাত্র। সেই মাদরাসায় আবার কওমি মাদ্রাসার অংশ নাকি বিশাল। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, সংস্কৃতি শিক্ষার ধারক। কিন্তু এই কওমি মাদরাসার সংস্কৃতিটা কী? সে মুক্তিযুদ্ধের কী শিক্ষা ধারণ করবে? আমাদের জানাতে হবে মুক্তিযুদ্ধের মৃত্তিকাকে অগ্রাহ্য করে বাংলাদেশে মানুষ হওয়া যাবে না। এদের জানা উচিত স্বাধীনতা কেউ আমাদের উপহার দেয়নি। এই বিশ্বে আমরা সবচেয়ে বড় দামে স্বাধীনতা অর্জন করেছি।’