মেইন ম্যেনু

দু’বছর আগে ‘মৃত’ স্ত্রী টেলিভিশনের পর্দায়, আঁতকে উঠলেন স্বামী!

অফিসে কাজের অনেক ব্যস্ত সময় পারকরছেন। হঠাৎ করেই মোবাইল ফোনটা বেজে উঠল। স্ক্রিনে ভেসে উঠছে পরিচিত এক বন্ধুর নম্বর। ফোন ধরতেই যা শুনলেন, তারপরে দুই পা আর মাটিতে রাখার মতো কোনো উপায় নেই। ফোনের ওপারের সেই বন্ধু জানাল, তার স্ত্রীর ছবি নাকি টেলিভিশনের পর্দায় দেখা যাচ্ছে। সঙ্গে লাইভ ফোনে কথা বলছেন তিনি।

কিন্তু, এ কিভাবে সম্ভব! কারণ তার স্ত্রী তো দু’বছর আগেই মারা গেছেন, তিনি কিভাবে ফোন করতে পারেন! দ্রুত চ্যানেলে চোখ রাখলেন মরক্কোর আজিলালের আবরাগ মহম্মদ। আবরাগ জানিয়েছেন যে গত দু’বছর আগে তার স্ত্রী একটি গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা যান। স্থানীয় কাসাব্লাঙ্কা হাসপাতাল থেকে তাকে জানানো হয়েছিল,

গুরুতর আঘাতের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। এরপর আবরাগ নিজের হাতেই স্ত্রী’র দেহ কফিনবন্দি করে সমাধিস্থ করে আসেন।

এরপর কেটে গেছে দু’বছর। স্ত্রী’কে হারানোর কষ্টটা একটু একটু করে কমতে শুরু করেছিল। সম্প্রতি তার পরিবার টেলিভিশনের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘আল মুজতাফান’ (নিরুদ্দেশ সম্পর্কিত খবরের অনুষ্ঠান) দেখতে বসেছিলেন। সেখানেই ওই মহিলার ছবি দেখতে পাওয়া যায়। সঙ্গে লাইভ ফোন। অনুষ্ঠানে ফোন করে ওই মহিলা বলছিলেন, তিনি তার স্বামীকে হারিয়ে ফেলেছেন। এমনকী, আবরাগের নাম এবং বাড়ির ঠিকানাও হুবহু বলে দিয়েছেন। এরপরই আবরাগের বন্ধুরা এই খবর তাকে জানান।

আঁতকে ওঠেন আবরাগ। তবে দুবছর আগে যে দেহটা তিনি নিজের হাতে সমাধিস্থ করেছিলেন, সেটা তার স্ত্রী’র ছিল না? পরে ভাবেন, তা হতেও পারে। কেননা চিকিৎসকেরা তার হাতে যে দেহটা তুলে দিয়েছিলেন, সেটা পুরোই কাপড়ে মোড়া ছিল। মৃত স্ত্রীর মুখটা দেখার মতো মানসিক স্থিতি ছিল না আবরাগের। সেই অবস্থআতেই কফিনবন্দিও করা হয়েছিল মহিলার দেহ।

আবরাগ বলছেন, ‘আমি সত্যিই জানি না যে ওটা আলাদা কোনো দেহ ছিল কি না! আমার ধারণা, আমার স্ত্রী আজও বেঁচে আছেন।’

প্রশ্ন উঠছে, যদি ওই মহিলা বেঁচেই থাকবেন তাহলে এতদিন পরে তিনি কেন যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন? পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, হয়তো স্মৃতিশক্তি নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে তিনি এতদিন পুরোনো কথা মনে করতে পারেননি।