মেইন ম্যেনু

দূষণ মাপতে কবুতর নিয়োগ!

দূষণ নিয়ন্ত্রণে এবার নয়া উদ্যোগ নিয়েছে লন্ডন প্রশাসন। পরিবেশের বিষবায়ু মাপতে নিয়োগ করা হয়েছে কবুতর। তাদের অত্যাধুনিক সেনা পায়রা। বার্তাবাহক হিসেবে পরিচিত কবুতর এবার পিঠে ব্যাকপ্যাক নিয়ে শহর ঘুরে ঘুরে দূষণের বার্তা দেবে মানুষজনকে।

ডিজেলচালিত গাড়ির বিষবাস্পে দমবন্ধ অবস্থা লন্ডনে। এতটাই যে, দূষণের কারণে বছরে ৯,৫০০ জনের অকালেই মৃত্যু হচ্ছে। দূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকারকে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে ব্রিটেনের সুপ্রিমকোর্ট। তারই ফলস্বরূপ ধোঁয়াশা রুখতে পায়রাকে কাজে লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

এ খবর দিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

কিন্তু কীভাবে? ব্যাপারটা অদ্ভুত মনে হলেও একটু খোলসা করে বললে বুঝে আসবে। ১০টি পায়রার পিঠে বেঁধে দেয়া হয়েছে ছোট্ট ব্যাকপ্যাক। তাতে রয়েছে দূষণ মাপার সেন্সর ও GPS ট্র্যাকার।

পায়রা যে এলাকায় রয়েছে, সেখানকার বাতাসে কী পরিমাণ নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড ও ওজোন গ্যাস রয়েছে তা মাপতে পারে এই ডিভাইস। পায়রাগুলোকে দেয়া হয়েছে একটি টুইটার হ্যান্ডেলও।

লন্ডনবাসী @PigeonAir-এ টুইট করলে অনলাইনেই জেনে যেতে পারবেন তার এলাকায় দূষণের পরিস্থিতি ঠিক কী। পায়রাটি যে অঞ্চলে রয়েছে তার একটি লাইভম্যাপও দেখা যাবে অনলাইনে।

তবে বায়ু দূষণের প্রভাব পড়বে এই পায়রাগুলোর উপরও। যেমন শরীরের ওজন কমে যেতে পারে, দুর্বল হতে পারে হৃদযন্ত্র। পায়রাগুলোর নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে এ প্রকল্পে একজন পশু-পাখির চিকিত্‍‌সককেও রাখা হয়েছে।

লন্ডনের আগেও পরিবেশের কারণে পিঠে ব্যাকপ্যাক পরিয়ে পাখিদের ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন বেআইনি আস্তাকুঁড়ের সন্ধান পেতে লিমা ও পেরুতে ব্যবহার করা হয়েছিল শকুনকে।

তাদের পিঠেও পরিয়ে দেয়া হয়েছিল একটি ডিভাইস, যেখানে জুড়ে দেয়া হয়েছিল GPS ট্র্যাকার ও অত্যাধুনিক ক্যামেরা।