মেইন ম্যেনু

দেখে মনে হবে রাস্তা, যুদ্ধ লাগলেই বেরিয়ে আসবে ফাইটার জেট

জার্মানির A44 নামের রাস্তাটি খালি চোখে দেখলে কিছুই বোঝা যাবে না। শিল্পাঞ্চল থেকে জিনিস জনবহুল এলাকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয় এই রাস্তা। কিন্তু এই রাস্তার আরও একটা ব্যবহার আছে। এই রাস্তাই ব্যবহার হতে পারে মিলিটারি রানওয়ে হিসেবে। যদি কখনও যুদ্ধ ঘোষণা হয় তাহলে এই রাস্তা দিয়েই উড়বে যুদ্ধবিমান। এই ধরনের রাস্তা এই জন্যই বানানো হয়, যাতে কখনও দেশের সবকটি এয়ারফোর্স বেস দখল হয়ে গেলেও যুদ্ধবিমান উড়তে অসুবিধা না হয়।

অস্ট্রেলিয়াতে আছে এই ধরনের রোড। সেটাও যে কোনও মুহূর্তে রানওয়ে হতে পারে। তখন এই সব রাস্তার বাঁক মুছে যায়। ঘাস উঠে গিয়ে বেরিয়ে আসে সেন্টার রানওয়ে লাইন। আর রাস্তার পাশের যে জায়গাটা পার্ক লট হিসেবে ব্যবহার হয়, সেখানেই পার্ক করা থাকবে এয়ারক্রাফট। সুইজারল্যান্ড, পোল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, ফিনল্যান্ডেও আছে এমন রাস্তা।

এবার সেই তালিকায় নাম লেখাতে চলেছে ভারত। গত বছর এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। কেন্দ্রীয় পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গদকড়ি জানিয়েছেন, রাস্তা এয়ারস্ট্রিপে পরিণত হবে। বিমান নামা-ওঠার সময় বন্ধ থাকবে গাড়ি। বাকি সময় স্বাভাবিক থাকবে যান চলাচল। অরুণাচল প্রদেশে এই গোপন এয়ারস্ট্রিপ তৈরি করার কথা ঘোষণা করেন তিনি। কখনও চিনা সৈন্য ঢুকে পড়লে রাস্তা বদলে যাবে রানওয়েতে। রাস্তার পাশের ঝোপে লুকিয়ে থাকবে এয়ারক্রাফট। সময় বুঝে উড়ে যাবে আকাশে।