মেইন ম্যেনু

দেড় হাজার মহিলাকে অশ্লীল এসএমএস, যুবক গ্রেফতার

হোয়াটসঅ্যাপ ডিসপ্লে প্রোফাইল থেকে বিভিন্ন মহিলার ছবি দেখে প্রথমে মহিলাদরে চিহ্নিত করা। তারপরে তাঁদের মোবাইলে অশ্লীল ছবি পাঠানো। এইভাবে প্রায় দেড় হাজার মহিলার মোবাইলে অশ্লীল এসএমএস পাঠানোর পরে অবশেষে দিল্লি থেকে গ্রেফতার করা হল মহম্মদ খালিদকে।

পুলিশ জানিয়েছে, ৩১ বছরের খালিদের অধিকাংশ বন্ধুরই বিয়ে হয়ে গিয়েছিল। অবিবাহিত থাকায় মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়েছিল খালিদ। সেই হতাশা থেকেই সে দিল্লি এবং সংলগ্ন এলাকার বিভিন্ন মোবাইল নম্বরে একের পরে এক ফোন করত। যে ফোনগুলি মহিলারা তুলতেন, সেই নম্বরগুলি নিজের মোবাইলে সেভ করে নিত অভিযুক্ত। এর পরে নিজের মোবাইল থেকে ওই মহিলাদের অশ্লীল এসএমএস পাঠাত খালিদ। গত ৩০ মে দিল্লির অশোক বিহার পুলিশ স্টেশনে এক মহিলা নিজের মোবাইল নম্বরে অশ্লীল এসএমএস পাচ্ছেন বলে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তিনি পুলিশকে জানান, দু’টি নম্বর থেকে তাঁর কাছে অশ্লীল এসএমএস আসে। যে দু’টি নম্বর থেকে এসএমএস এসেছিল, সেই নম্বর দু’টিতে ফোন করলে এক ব্যক্তি তাঁর ছবি পর্ন সাইটে আপলোড করার হুমকিও দেন বলে পুলিশকে জানান ওই মহিলা। তিনি পুলিশকে ওই দু’টি মোবাইল নম্বরও দিয়েছিলেন।

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, ভুয়ো পরিচয়পত্র দেখিয়ে ওই সিম দু’টি তোলা হয়েছিল। এর পরে ওই নম্বর দু’টির উপরে নজর রাখতে শুরু করে পুলিশ। দেখা যায়, দিল্লির সদর বাজার এলাকা থেকে নিয়মিত সিম দু’টি রিচার্জ করা হয়। সেই সূত্রেই বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত মহম্মদ খালিদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। দিল্লির সদর বাজার এলাকায় তার বাবার একটি ব্যাগের দোকান রয়েছে। গ্রেফতারের পরে খালিদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে, প্রায় দেড় হাজার মহিলাকে অশ্লীল এসএমএস পাঠিয়েছে সে। ধৃতের কাছ থেকে দু’টি মোবাইল ফোনও পেয়েছে পুলিশ।