মেইন ম্যেনু

দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক এবং মানুষ নিরাপদে আছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেন, যেসব হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে, সেগুলো সবই টার্গেট কিলিং। এ সব করা হচ্ছে পুলিশের মনোবল ভেঙে দেওয়ার জন্য।

সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। মন্ত্রী বলেন, দেশে ব্যবসা বাণিজ্য ঠিকমতো চলছে, মানুষ ঠিকমতো ঘুমাচ্ছে। দেশের সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘জঙ্গি দমনে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার উল্লেখযোগ্য এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন। আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, এ জন্যই তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়েছে। শিগগিরই হত্যাকারীরা শনাক্ত হবে এবং ধরা পড়বে বলে আমরা আশা করছি।’

পুলিশের প্রতিটি বিভাগ, গোয়েন্দা সংস্থা এ ঘটনাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে বলে জানান মন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, জঙ্গিগোষ্ঠী দেশকে অস্থিতিশীল করতে এ ধরনের টার্গেট কিলিং চালিয়ে যাচ্ছে। এদের দেশের একটি গোষ্ঠী মদদ দিচ্ছে।

কোন গোষ্ঠী মদদ দিচ্ছে, তা জানতে চাইলে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এরই মধ্যে একটি দলের একজন নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’ তবে এ বিষয়ে এর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

সম্প্রতি দেশে ঘটে যাওয়া বেশ কিছু হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ইসলামিক স্টেটের দেওয়া বক্তব্য প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আইএসের অস্তিত্ব নেই। দেশে এখন যে ধরনের টার্গেট কিলিং হচ্ছে, তেমনটি যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্রসহ উন্নত বিশ্বের দেশেও হচ্ছে। সেখানে এগুলো এখন আর অস্বাভাবিক ঘটনা নয়।

তিনি বলেন, দেশের উন্নয়ন স্বাভাবিক আছে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা আছে, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও স্বাভাবিক আছে। এই শান্তিপূর্ণ অবস্থাকে বিশৃঙ্খলার দিকে নেওয়ার জন্য এ ধরনের ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের ক্লু উদঘাটিত হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, একই ধরনের ৩৬টি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে ৩৫টির সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করা গেছে। এর মধ্যে তিনটি হত্যাকাণ্ডের বিচার নিষ্পত্তি হয়েছে। আরো ছয়টি হত্যার ঘটনায় আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। এই ৩৫টি ঘটনার জন্য মোট ৪৯ জন হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। কাজেই হত্যাকারী যে-ই হোক, তাদের ধরে ফেলতে পারবেন।

হত্যাকারীরা নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা যে পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে টার্গেট করবে, এটা আমাদের ধারণা ছিল না। তবে তারা যত কৌশলই অবলম্বন করুক, রেহাই পাবে না।’

মোটরসাইকেলে তিনজন ওঠার ওপর নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি এখন আরো কঠোরভাবে তদারক করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

রোববার সকালে চট্টগ্রামের ও আর নিজাম রোডের বাসা থেকে প্রথম শ্রেণি পড়ুয়া ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে জিইসি মোড়ে যাওয়ার সময় খুন হন এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু। মোটরসাইকেলে করে আসা তিন হামলাকারী মিতুকে প্রথমে ছুরি মারে এবং পরে মাথায় গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে চলে যায়।