মেইন ম্যেনু

দেশ দুটি, গ্রাম একটি, রানী কিন্তু ৬০ জন !

দেশ দুটি হলেও গ্রাম কিন্তু একটি! আর সেই গ্রামের রাজা একজন আর রাণী কিন্তু ৬০জন এবং রাজপুত্রও রয়েছে একজন। কেমন গোলমেলে লাগছে? লাগারই কথা। তবে একটু ধৈর্য ধরুণ, সব পরিস্কার হয়ে যাবে।

এ গ্রামটি পাহাড় ঘেরা একটি গ্রাম। ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্তর এপার ওপার মেলানো গ্রামটির নাম লৌঙ্গা, নাগাল্যান্ডের একটি গ্রাম। এ গ্রামের রাজার নাম হচ্ছে অঙ্গ নগোবাঙ্গ।

৭০টি গ্রাম নিয়ে তার রাজত্ব। অবশ্য এখানে লোক সংখ্যা বলতে খুব বেশি নেই। তবে বেশ সাজানো গুছানো্ কয়েকটি বাড়ি রয়েছে এখানে। কোন্যাক উপজাতিরা এখানে বাস করে। তবে গ্রামের বাসিন্দাদেরও আছে বাড়তি সুবিধা। ভারতের বাসিন্দা হলেও অনায়াসেই যেতে পারেন মিয়ানমারেও। এ জন্য কোনো ভিসার প্রয়োজন পরে না।

এ গ্রামের রাজার প্রাসাদ ছুঁয়ে সীমান্ত গিয়েছে, তাই রাজপরিবারের সদস্যদের খেতে হয় মায়ানমারের দিকে, শুতে হয় ভারতের দিকে। শুধু এই রাজপরিবার নয়, রাজার প্রাসাদ যেখানে, সেই গোটা লৌঙ্গা গ্রামের সবাই পেয়েছেন দ্বৈত নাগরিকত্ব। দু-দেশেই অবাধ গতিবিধি।

আর এ কারণে এই গ্রামের বাসিন্দাদের রয়েছে দ্বৈত নাগরিকত্ব। এই উপজাতিদের রাজার প্রাসাদের সামনে দিয়েই গিয়েছে দু-দেশের বিভাজন রেখা, অর্থাত্‍ৎ সীমান্ত।