মেইন ম্যেনু

‘দেশ ভয়াবহ অবস্থা থেকে রক্ষা পেয়েছে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাজধানীর কল্যাণপুরে ‘জঙ্গি আস্তানা’য় পুলিশের ত্বরিত অভিযানের ফলে ভয়াবহ অবস্থা থেকে রক্ষা পেয়েছে দেশ।

আজ মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চার দিনব্যাপী জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

গতকাল সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে কল্যাণপুরের ৫ নম্বর রোডে ‘জাহাজ বিল্ডিং’ নামে পরিচিত সাততলা ভবনটিতে অভিযানে যান পুলিশের বিশেষায়িত দল সোয়াতের সদস্যরা। এ সময় ভবনের পঞ্চম তলা থেকে জঙ্গিরা ককটেল ছোড়ে। পরে ভবনটির আশপাশের এলাকা ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

জাহাজ বিল্ডিংয়ের পাশের ভবনগুলোর ছাদে অবস্থান নেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ঘটনাস্থলের আশপাশের সবকটি সংযোগ সড়কেও ব্যারিকেড দেয় পুলিশ।

রাতভর পরিকল্পনার পর ভোর ৫টা ৫১ মিনিটে শুরু হয় ‘অপারেশন স্টর্ম টোয়েন্টিসিক্স’। ঘণ্টাখানেক ধরে মুহুর্মুহু গুলির শব্দে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। এরপর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ভবনের নিয়ন্ত্রণ নেন। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে নয় জঙ্গি নিহত হয়। আটক করা হয় এক সন্দেহভাজন জঙ্গিকে।

এ ঘটনা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলাম ধর্ম মানুষ খুন সমর্থন করে না। সরকার যেকোনো ধরনের জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস বাংলাদেশে স্থান পেতে দেবে না। তিনি বলেন, আজকে কল্যাণপুরে যে জঙ্গিরা নিহত হয়েছে, তাদের অনেকে শিক্ষিত। ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করা হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

প্রধানমন্ত্রী ডিসিদের উদ্দেশে বলেন, মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তা হিসেবে জঙ্গিবাদ নিরসনে তাঁদের বড় ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি বলেন, প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ মোকাবিলায় সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন শেখ হাসিনা। তাঁর বক্তব্যে দেশের উন্নয়ন, সরকারের বিভিন্ন পরিকল্পনা, ডিসি ও বিভাগীয় কমিশনারদের প্রতি বিভিন্ন নির্দেশনা ছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। ১০৫টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। ৭৬ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে। কোনো অঞ্চল অন্ধকারে থাকবে না। তিনি বলেন, বাংলাদেশের নিজস্ব বাজার সৃষ্টি হচ্ছে। উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। উৎপাদন বৃদ্ধি করতে পারলে দেশের মানুষের কল্যাণ হবে। বিদেশেও পণ্য রপ্তানি করা যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, সরকার প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক শূন্য ৫ ভাগে উন্নীত করেছে। লক্ষ্য, প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ২ ভাগে উন্নীত করা। তিনি বলেন, খাস জমিগুলোতে গৃহহীনদের বিনামূল্যে ঘর করে দেওয়া হবে না। দেশের কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না।

সরকারের দারিদ্র্য বিমোচন পরিকল্পনা প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের লক্ষ্য দারিদ্র্য বিমোচন করা। ২০২১ সালের আগেই দারিদ্র্য ৮ থেকে ১০ ভাগ কমানো হবে।