মেইন ম্যেনু

শিক্ষককে অপদস্ত : দ্বিতীয় তদন্তেও ধর্ম নিয়ে কটূক্তির প্রমাণ মেলেনি

নারায়ণগঞ্জে শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তির যে অভিযোগ আনা হয়েছিল তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

রোববার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বৈঠক শেষে কমিটির প্রধান ও শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু এ কথা জানান।

এর আগে শিক্ষা অধিদপ্তরের তদন্তেও শ্যামল কান্তি ভক্তের বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্মের প্রতি কটূক্তির অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ মে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি এবং শিক্ষার্থীকে মারধর করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের কলাগাছিয়া ইউনিয়নের কল্যান্দির পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে গণপিটুনি দেয়ার পর কান ধরে উঠবস করানো হয়। বিদ্যালয়েল ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্তের কথা বলা হলেও স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের উপস্থিতিতে এবং নির্দেশে এ শিক্ষককে হেনস্তা করা হয়।

এদিকে তনু হত্যা মামলা প্রসঙ্গে আমীর হোসেন আমু বলেন, ‘উক্ত মামলার প্রথম রিপোর্টে ধর্ষণের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। তবে দ্বিতীয় রিপোর্টে আলামত পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

৩৭টি চঞ্চল্যকর মামলা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘২৫ মামলার সাথে জেএমবি জড়িত, আটটির সাথে আনসারুল্লা বাংলা টিম ও চারটির সাথে অন্যান্য সংগঠন জড়িত। তবে কেউ কেউ বলেছেন এসব ঘটনার সাথে আইএস জড়িত। তাদের আমরা তথ্য দিতে বলেছি, কিন্তু তারা কোনো তথ্য দিতে পারেনি।’

দেশে জঙ্গি হামলা বেড়ে চলেছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে হত্যা, গুম, ডাকাতি হ্রাস পেয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এসব ঘটনায় যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।’

আমীর হোসেন আমু জানান, ১২৬টি চাঞ্চল্যকর মামলায় ১৪৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪৯ জন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।