মেইন ম্যেনু

ধর্ষককে খুঁজতে মার্কিন তরুণী ভারতে

দিল্লির এক ফাইভ স্টার হোটেলে পর্যটক গাইড ও হোটেল কর্মচারীদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার মার্কিন তরুণী ভারতে ফিরে এসেছেন। এবার আর ঘুরতে নন, ধর্ষকদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় সোপর্দ করাই তার মূল টার্গেট।

নয় মাস পূর্বে মার্কিন তরুণীর সঙ্গে এ ঘটনা ঘটে। এপ্রিলে এক প্যাকেজ ট্যুরে তিনি ভারতে বেড়াতে এসেছিলেন। তখন তার পর্যটক গাইড নেশা পান করিয়ে তাকে হোটেল কর্মীদের নিয়ে ধর্ষণ করেন।

এনডিটিভিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ওই তরুণী বলেন, ‘আমি এক গাইডেড ট্যুরে ভারতে এসেছিলাম। আসার পর এক ফাইভ স্টার হোটেলে উঠি। সেখানে পানির সঙ্গে অচেতন হওয়ার ওষুধ দিয়ে আমাকে ধর্ষণ করা হয়। প্রথমে আমার গাইড ও তার সহকারী এবং পরে আরও ২ হোটেল কর্মচারী তাদের সঙ্গে মিলিত হয়ে আমাকে ধর্ষণ করে। আমি তাদের নাম না জানলেও তাদের দেখামাত্র চিনতে পারবো।’

ঘটনার আকস্মিকতায় হতবিহ্বল ওই তরুণী ভারতের কোনো পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ না করেই নিজ বাড়ি যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়াতে ফিরে যান। পরে কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে তিনি এক স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ভারতে তার লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।

এদিকে ঘটনার তদন্তে ও দোষীদের ধরতে ওই ফাইভ স্টার হোটেল কর্তৃপক্ষ ও পর্যটক গাইড সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান কোনো দায় নিতে চায়নি। তারা শুধু তাদের ব্যবসায়িক ইমেজ রক্ষায় ব্যস্ত ছিল বলে অভিযোগ করেন ওই তরুণী।

দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় যথাযথ সহায়তার আশ্বাস দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ১১ জনকে আটক ও জিজ্ঞাসাবাদের ঘটনাও ঘটেছে।

এ বছর কেবল দিল্লিতেই ১ হাজার ৯শ’র বেশি ধর্ষণ অভিযোগ জমা পড়েছে।



« (পূর্বের সংবাদ)