মেইন ম্যেনু

ধর্ষণের পর রক্ত পান করে তৃষ্ণা মেটায় এই নারী!

মেক্সিকোর ইতিহাসে জঘন্য এক নারী অপরাধীর সন্ধান মিলেছে। গলা কাটা লাশকে ধর্ষণ করার পর লাশের রক্ত পান করে তৃষ্ণা মেটাতো সে। মেক্সিকোর ক্যালিফোর্নিয়া জেলে জবানবন্দিতে এমন লোমহর্ষক ঘটনার স্বীকারোক্তি দিয়েছে ২৮ বছর বয়সী ইউয়ানা নামের ওই নারী।

ব্রিটেনের ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়, ছোটবেলা থেকেই ডাকাতির সঙ্গে জড়িত ছিল এবং এক পর্যায়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন ইউয়ানা।

মেক্সিকোর হিডালগোতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ১৫ বছর বয়সে ৪৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তির দ্বারা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন ইউয়ানা।

নিজের শিশুর ভরনপোষণ যোগানের জন্য বাধ্য হয়েই পতিতাবৃত্তিতে নামতে হয় তাকে। পরে সে একটি চাকরিতে যোগ দেয়। চাকরির অভিজ্ঞতাও খুব একটা মধুর ছিল না। ৮ ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হতো ইউয়ানাকে। অল্প পরিমাণেই খাবার খেতে পারতেন তিনি।

স্থানীয় পত্রিকার বরাত দিয়ে ডেইলি মেইল জানায়, খুব দ্রুতই স্বভাব পরিবর্তন হতে থাকে তার। এক সময় হয়ে যান সিরিয়াল কিলার।

ইউয়ানা বলেন, ‘হত্যা করার পর লাশটির সঙ্গে গোসল করতাম। সেটির সঙ্গে ঘষাঘষি করতে খুব উত্তেজিত হয়ে যেতাম। এমনকি লাশের রক্ত খেতাম। তখনো গরম থাকতো সেগুলো।’

গলা কাটা লাশগুলোর সঙ্গে যৌন মিলনে আনন্দ উপভোগ করতেন বলেও জানান ইউয়ানা।

ইউয়ানার মামলাগুলো এখনো বিচার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।