মেইন ম্যেনু

ধর্ষণ মামলার আসামিকে নিয়োগের পাঁয়তারা

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের একটি বিদ্যালয়ে ধর্ষণ মামলার আসামিকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টার ঘটনায় শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

বৃহস্পতিবার উপজেলার পাকুড়িয়া মাধ্যমিক বিদালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় একাধিক সূত্রের অভিযোগ, পাকুড়িয়া মাধ্যমিক বিদালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম মোটাঅঙ্কের উৎকোচ নিয়ে ধর্ষণ মামলার আসামি আব্বাস শাহ নামে এক ব্যক্তিকে শরীরচর্চা বিষয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছেন। তার নিয়োগের সব প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়ে গেছে এমন খবরে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ে গিয়ে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয় এবং বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় অভিভাবকদের পক্ষ থেকে বিষয়টি দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মৌখিকভাবে জানান। পরে ইউএনও মো. তৌফিকুর রহমান শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়ায় পরে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় ত্যাগ করে।

অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, ‘বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম এবং বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি লালান মণ্ডল মিলে দৌলতপুর থানায় ধর্ষণ মামলার আসামি আব্বাস শাহের কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা উৎকোচ নিয়ে তাকে শরীরচর্চা বিষয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার পাঁয়তারা করছেন। একজন অসৎ চরিত্রের ব্যক্তিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো জায়গায় নিয়োগ দেয়া হলে তার কাছ থেকে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা কী শিখবে?’

তারা বিদ্যালয়টিতে যোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার জন্য দাবি জানান।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘কতিপয় ব্যক্তি বিদ্যালয়ের সুনাম নষ্ট করার জন্য ও অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য শিক্ষার্থীদের মাঝে এ ধরনের বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।’