মেইন ম্যেনু

ধূমপান সম্বন্ধে জেনে নিন কয়েকটি অজানা বিষয়

১. চুল পাতলা হবে ও উজ্জ্বলতা হারাবে
গবেষণায় দেখা গেছে, ধূমপানের ফলে আপনার চুলের অনেকধরনের ক্ষতি হয়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রভাব দেখা যায় চুলের পুরুত্বে। ধূমপানের প্রভাবে শরীরের প্রয়োজনীয় উপাদান জিংক, ভিটামিন বি, ক্যারোটিন, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন সি কমে যাওয়ায় চুলে এর প্রভাব পড়ে।

২. রক্তচলাচলে বাধা
ধূমপানের ফলে আপনার পায়ে রক্তচলাচল কমে যাবে। অনেক ধূমপায়ীর এ কারণে মেরুদণ্ডে ব্যথা হয়। অনেক ধূমপায়ী শারীরিক পরিশ্রম করার সময় শরীরের ব্যথায় আক্রান্ত হন।

৩. নাকের গন্ধ সংবেদনশীলতা কমে যায়
ধূমপানের অনেক ক্ষতিকর দিকের মধ্যে এটি অন্যতম। মানুষের নাকের গন্ধ সংবেদনশীল স্নায়ুগুলোর কার্যকারিতা কমে যায় ধূমপানের ফলে।

৪. হাড় দুর্বল হয়ে যাওয়া
ধূমপানের ফলে ‘অস্টিওব্ল্যাস্টস’-এর কাজের গতি কমে যায়। এ পদার্থটি দেহের হাড়ের কোষগুলো তৈরি করে। ফলে আপনার শরীরের হাড় দুর্বল হয়ে যায়। এ কারণেই ধূমপায়ীদের আঘাতের ফলে হাড় ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা অন্যদের তুলনায় বেশি থাকে।

৫. মজার খাবারের স্বাদ কম লাগবে
ধূমপানকারীরা কোনো মজার খাবারের যতোটা স্বাদ পাবেন, অন্যরা সেই খাবার খেয়েই তার চেয়ে বেশি স্বাদ পাবেন। কারণ নিকোটিন স্বাদের সেন্সরের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়।

৬. অকালেই বয়স্ক মনে হবে
ধূমপানের ফলে মানুষের ত্বকের নমনিয়তা কমে যায়। ফলে চামড়ায় ছোট-বড় ভাজ পড়ে এবং অকালেই বয়স্ক মনে হয়। এর ফলে ত্বকে দাগ পড়ে ও স্কিন ক্যান্সারের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

৭. ছোট লেখা পড়তে সমস্যা
ধূমপানে চোখের ক্ষতি হয় এবং এর ফলে আপনার দৃষ্টিশক্তি ক্রমেই কমতে থাকবে। এর প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে ছোট লেখা পড়তে সমস্যা। মূলত চোখের ‘ম্যাকুলার পিগমেন্ট’-এর ঘনত্ব কমে যাওয়ার ফলেই এ ঘটনা ঘটে। পরে ধীরে ধীরে অন্ধত্বের দিকে নিয়ে যেতে পারে ‘ম্যাকুলার পিগমেন্ট’-এর ঘনত্ব কমে যাওয়া।