মেইন ম্যেনু

নওয়াজের পদত্যাগ চান ইমরান ও জারদারি

আবারও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পদত্যাগ দাবি করলেন দেশটির বিরোধী দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিঅাই) চেয়ারম্যান ও সাবেক ক্রিকেট তারকা ইমরান খান। পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির অভিযোগে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার ইসলামাবাদের সুপ্রিম কোর্ট তদন্ত দল গঠনের নির্দেশ দেয়ার পর পরই ইমরান ওই দাবি জানান।

গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে প্রশ্ন তুলে পিটিঅাই’র এ প্রধান বলেন, ‘ফৌজদারি অপরাধের যখন তদন্ত চলছে; তখন নওয়াজের প্রধানমন্ত্রী পদে থাকার নৈতিক অধিকার আছে কী?’

পাক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির অভিযোগ তদন্তে কমিশন গঠনে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপ করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আদালত কক্ষ ত্যাগ করেন ইমরান।

পরে উজাইর ব্যালোচ ও পাক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি তদন্তের তুলনা করে ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া ইমরান বলেন, তদন্ত দলের অনুসন্ধানে যদি নওয়াজ নির্দোষ হন, তাহলে ক্ষমতায় ফিরে যেতে পারবেন।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের প্রতি সম্মান জানিয়ে ইমরান খান বলেন, এ রায় ঐতিহাসিক; কারণ অতীতে কখনোই একজন ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্ত হয়নি। তিনি বলেন, নওয়াজ শরিফের দেয়া সব ধরনের যুক্তিতর্ক মিথ্যায় পরিপূর্ণ ছিল। কাতারের প্রিন্সের দেয়া চিঠি ইতোমধ্যে ভুয়া প্রমাণিত হয়েছে। বিচারকদের উচিত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজকে অযোগ্য ঘোষণা করা।

দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারিও নওয়াজের পদত্যাগ দাবি করেছেন। তিনি বলেন, জাতি আজ প্রতারিত হয়েছে। কিসের ভিত্তিতে পাকিস্তান মুসলিম লীগ- নওয়াজ মিষ্টি বিতরণ ও উদযাপন করছে? দুই জ্যেষ্ঠ বিচারক যে প্রধানমন্ত্রীকে অযোগ্য ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন; তারা কী সেই রায় উদযাপন করছে?

বৃহস্পতিবার পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে ক্ষমতা থেকে অপসারণের জন্য পর্যাপ্ত তথ্য নেই বলে জানিয়েছে পাক সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে যৌথ তদন্ত দল গঠনের নির্দেশ দেয়া হয়।

সুপ্রিমকোর্টের এই নির্দেশের ফলে ক্ষমতায় থাকতে নওয়াজের জন্য কোনো বাধা নেই। পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার বিভক্ত রায় দিয়েছে বলে দেশটির জাতীয় দৈনিক ডন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী খাজা আসিফ সুপ্রিম কোর্টের বাইরে সাংবাদিকদের বলেন, শীর্ষ আদালতের রায় ৩-২ এ বিভক্ত। প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে চিঠিতে বলেছিলেন যে, এ বিষয়ে তদন্তের জন্য একটি কমিশন গঠন করা উচিত। আদালতও তাই বলেছেন- বলেন তিনি।

আসিফ বলেন, ‘আমরা সব ধরনের তদন্তের জন্য প্রস্তুত রয়েছি। আজ এটা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যে, আমাদের বিরোধীরা আদালতের কাছে যে তথ্য-উপাত্ত দিয়েছেন তা পর্যাপ্ত নয়। আমরা জয়ী হয়েছি।’

গত বছর পানামা পেপারসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ক্ষমতাসীন নেতা ও তাদের আত্মীয়-স্বজনরা অর্থপাচারে জড়িত বলে এক কোটি ১০ লাখ নথি ফাঁস হয়। কর ফাঁকি দিয়ে অর্থ পাচার কেলেঙ্কারিতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর কন্যা মরিয়াম, ছেলে হাসান ও হুসেইন নেওয়াজের নাম উঠে আসে।

এতে বলা হয় আটটি অফশোর কোম্পানি রয়েছে পাক প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের। এছাড়াও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও তার আত্মীয়-স্বজন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠজন, আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমুনডার ডাভিড গুনলাগসন এবং বার্সেলোনার ফুটবল তারকা লিওনেল মেসির নামও উঠে আসে পানামা পেপারসের নথিতে।

সূত্র: এক্সপ্রেস ট্রিবিউন, ডন।