মেইন ম্যেনু

‘নজরদারির দায়িত্ব বিদেশী রাষ্ট্রকে দেওয়া হয়নি’

‘স্বাধীন বাংলাদেশ হিসেবে আমাদের দেশের নির্বাচনী আইন-কানুন ভঙ্গ হলে সেটা দেখভালের দায়িত্ব আমাদেরই। এখানে বিদেশী বন্ধু রাষ্ট্রের আনন্দিত হওয়া বা হতাশ হওয়ার কিছু নেই।’

সিটি নির্বাচনের কারচুপি তদন্ত নিয়ে বৃটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসনের উদ্বেগ প্রকাশ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশের নির্বাচনের ওপর নজরদারির দায়িত্ব কোনো বিদেশী রাষ্ট্রকে দেওয়া হয়নি। পৃথিবীর পুলিশের দায়িত্ব যারা নিজেরাই গ্রহণ করেছেন সেই সব স্বঘোষিত পুলিশের সঙ্গে আমাদের কোনো লেনদেন নেই।’

কুষ্টিয়ার সার্কিট হাউসে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রসঙ্গত, তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগের একটি পূর্ণাঙ্গ ও সুস্পষ্ট তদন্ত না হওয়াকে ‘অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক’ বলে মন্তব্য করেন ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন। বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে ডিকাব আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তথ্যমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘উন্নয়নের দরজা খোলার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যৌথভাবে পানি সমস্যার সমাধান উপহার দেবেন।’

তিনি বলেন, ‘বেগম জিয়া ও তার স্বামী জিয়াউর রহমান সন্ত্রাসীদের লালন পালন, জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছেন। এ সব অপরাধ ঢাকার জন্য তারা বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে চক্রান্তমূলকভাবে উত্তেজনা জিইয়ে রাখেন। এখন বাংলাদেশের রাজনীতিতে পিছু হটে যাওয়ায় খালেদা জিয়া সুর পাল্টে ভারতের পক্ষে কথা বলার চেষ্টা করছেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মনে করি বন্ধু কখনই প্রভু নয়, সম্প্রতি বেগম খালেদা জিয়া ভারতের সঙ্গে প্রভুদের মতো তোষামোদি করা এবং প্রভুর কাছে অভিযোগনামা দাখিলের রাজনীতি করেছেন।’

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) সৈয়দ বেলাল হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) আবু বক্কর সিদ্দিক, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পরে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে মন্ত্রীকে গার্ড অব অনার প্রধান করা হয়।