মেইন ম্যেনু

‘নতুন কোচ, নতুন চ্যালেঞ্জ’

লোডভিক ডি ক্রুইফের সঙ্গে মামুনুলদের সখ্যতা ছিল প্রায় বছর দুয়েকের মতো। তবে সেই অধ্যায় এখন অতীত। বাংলাদেশ ফুটবল দলের নতুন কোচ এখন ইতালিয়ান ভদ্রলোক ফ্যাবিও লোপেজ। ইতোমধ্যে ক্যাম্পে ডাকা ৪১ ফুটবলারকে নিয়ে শুরু হয়েছে লোপেজের পরীক্ষা-নিরীক্ষা। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিকেএসপিতে চলবে এই ক্যাম্প। তারপর চূড়ান্ত হবে ২৩ সদস্যের স্কোয়াড। তবে মঙ্গলবার ৩৭জন রিপোর্ট করেছে। বাকিরা ১৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে যোগ দেবেন আবাসিক ক্যাম্পে। বিকেএসপিতে যাওয়ার আগে নতুন কোচ প্রসঙ্গে কথা বলেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম। তার মতে, নতুন কোচ মানেই, নতুন কিছু শেখা, থাকবে চ্যালেঞ্জও।

তবে নতুন কোচ ফ্যাবিও লোপেজ নাকি বেশ বন্ধুর মতোই। মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে পরিচয় পর্বে সেরকমই আঁচ করেছেন মামুনুল, ‘পরিচয় পর্বে বেশ আন্তরিকভাবে সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছেন কোচ । বন্ধুর মতো কে কি করে তাও জানতে চেয়েছেন। বলেছেন, ‘যাই করো তোমাদের ব্যক্তিগত বিষয়। কিন্তু মাঠে পারফর্ম করতে হবে। এবং শৃংখলার বিষয়েও খুব শক্ত কোচ’।

আগের কোচ ক্রুইফ ছিলেন হল্যান্ডের। লোপেজ ইতালির। ফলে জাতিগত দিক থেকে দুই কোচের ধারা ভিন্ন। তবে মামুনুল বলেন, ‘ইউরোপের ফুটবলের ভাষা এক। খেলোয়াড়দের কোয়ালিটির উপর ফরমেশন তৈরি হয়। কোচের কথায় যতটুক বুঝা গেলো আমাদের ফিটনেস নিয়েই কাজ করবেন বেশি। যাতে আমরা ফিজিকালি ফিট হতে পারি। আর খেলোয়াড়দের কাছ থেকে পারফরমেন্স আদায় করে নেবার ক্ষমতাটাও তার বেশি বলেই মনে হলো’।

লোপেজ সম্পর্কে মামুনুল আরও বলেন, ‘হাসতে হাসতে কোচ অনেক কথাই বলেছেন। যেটা আমাদের জন্য ভালো। শৃংখলার বিষয়টা শক্ত রাখতে বলেছেন এবং মাঠে কঠিন পরিশ্রম করে দেশের জন্য ভালো ফলাফল আনার উপরেই জোর দিয়েছেন’।
নতুন কোচের কাছে প্রত্যাশা কেমন, এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘নতুন কোচের কাছ থেকে নতুন অনেক কিছু শেখা যায়। শেখার কোন শেষ নেই। ৪১ জন খেলোয়াড় জাতীয় দলে ডাক পাওয়া। এটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ। সেখান থেকে ২৩ জনের দল, কিন্তু মাঠে খেলবে ১১ জন। আমাদের সবার জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ যে আমাদের নতুন করে পারফর্ম করে দলে আসতে হবে। সে বলে দিয়েছে ইতোমধ্যে অতীত অধ্যায় শেষ। নতুন অধ্যায় শুরু। আমি ভালো কোচ। কিন্তু সেটি কখন? যখন আমি ভালো ফলাফল দেখাতে পারবো’।

ক্রুইফ অনেকদিন কাজ করেছেন। হঠাতই তার বদলে নতুন কোচ। এতে খেলোয়াড়রা মানসিক চাপে পড়বে কি না? মামুনুল অবশ্য সেটা মনে করছেন না, ‘আমরা বাঙ্গালি জাতি আবেগপ্রবণ। আমরা যার সঙ্গে দীর্ঘ সময় থাকি তাকে কিছুটা হলেও মিস করি। তাকে মিস করবো তার থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তবে আমার মনে হয় নতুন কোচের কাছ থেকেও অনেক কিছু শেখা যাবে’।

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে ক্রুইফের নেতৃত্বে চারটি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে তিনটিতে হার, একটিতে ড্র। আগামী ১৩ অক্টোবর কিরগিজস্তানের মাঠে খেলতে যাবে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে এই কিরগিজদের সঙ্গে ৩-১ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ। এবার নতুন কোচ লোপেজের অধীনে কেমন করে বাংলাদেশ, তাই যেন দেখার বিষয়।

১২ নভেম্বর তাজিকস্তান ও ১৮ নভেম্বর বঙ্গবন্ধ জাতীয় স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। বি গ্রুপের শেষ ম্যাচ আগামী বছরের ২৪ মার্চ, জর্ডানের বিরুদ্ধে। একমাত্র অস্ট্রেলিয়া ছাড়া বাকি তিনটি ম্যাচই বাংলাদেশকে খেলতে হবে প্রতিপক্ষের মাঠে।



« (পূর্বের সংবাদ)