মেইন ম্যেনু

নতুন জীবন নিয়ে যা বললেন ইমরান এইচ সরকার

গতকালই (৩১ ডিসেম্বর) বিয়ে করেছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। পাত্রী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কন্যা নাদিয়া নন্দিতা ইসলাম। শনিবার বর সেজে কনের বাড়িতে যান ইমরান। কনের বাড়ির বিবাহমঞ্চে ‘কবুল’ বলে নতুন জীবনে প্রবেশ করেন ইমরান ও নন্দিতা।

ইমরান তার ‘নতুন জীবন’ সম্পর্কে গেল ২২ ডিসেম্বর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তার নিজস্ব লাইক পেজে ইঙ্গিত দিয়ে বলেছিলেন ‘ভালো কিছুর অপেক্ষায়….।’ এরপর তাকে ফেসবুকে আর পাওয়া যায়নি। আজ তিনি আরেক স্ট্যাটাসে তার বিবাহোত্তর জীবনে সবার শুভকামনা প্রত্যাশা করেছেন। সেখানে তিনি লেখেন,‘আমি এবং নন্দিতা আমাদের নিজেদের পছন্দে এবং পারিবারিক আয়োজনে নতুন জীবন শুরু করেছি। আশাকরি আমরা সবসময় আপনাদের শুভকামনায় থাকবো। সকলের মঙ্গল হোক। হ্যাপি নিউ ইয়ার!’

গেল ৩০ ডিসেম্বর শুক্রবার ছিল নন্দিতা-ইমরানের গায়ে হলুদ। বর ইমরান এইচ সরকার যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবিতে ছাত্র-জনতার আন্দোলন শুরুর পর থেকে দেশের পরিচিত মুখ। আর কনে নাদিয়া নন্দিতা ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ‌্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের মেয়ে। শনিবার রাতে রাজধানীর হেয়ার রোডে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সরকারি বাসভবনে পারিবারিক আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় ইমরান-নন্দিতার বিয়ে।

দুই পরিবারের সদস্য ও নিকটাত্মীয় ছাড়াও বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যা আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, অধ্যাপক অজয় রায়, অধ্যাপক আবুল বারকাত, মানবাধিকার কর্মী খুশি কবির ও নারী অধিকার কর্মী শিপ্রা বসু। গণজাগরণ মঞ্চের বেশ কয়েকজন নেতাও ছিলেন এ আয়োজনে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষাতত্ত্বের সহকারী অধ‌্যাপক নন্দিতা পরিচিতজনদের কাছে তিন্নি নামে পরিচিত। বেশ কিছুদিন ধরেই পারিবারিকভাবে ইমরানের সঙ্গে তার বিয়ের কথা চলছিল।

৩৩ বছর বয়সী ইমরান ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রের দায়িত্বে আসার পর দেশেজুড়ে আলোচিত মুখ। আর সিলেটের মেয়ে নন্দিতার এসএসসি ১৯৯৭ সালে।

রংপুর মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি নেওয়া ইমরান ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগে যুক্ত ছিলেন। ‘ইয়ুথ ফর পিস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি’ বা ওয়াইপিডি নামে একটি সংগঠনও করতেন তিনি, যার মূল লক্ষ্য ছিল বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মধ্যে অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও রাজনৈতিক সচেতনতা সৃষ্টি। এ কাজের জন্য ‘প্রজন্ম ব্লগ’ গঠন করে ওয়াইপিডি।