মেইন ম্যেনু

নতুন দিনের সূচনায় জাবির ইংরেজি বিভাগ

শাহাদত হোসাইন স্বাধীন, জাবি থেকে: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ৪৪ তম আবর্তন ভিন্ন আঙ্গিকে বরণ করে নিলো ৪৫ আবর্তনকে।তারা অবমাননাকর র্যাগিং সংস্কৃতিকে রূপান্তরিত করে সৃজনশীল ও চিত্রহর্ষক পরিচয় পর্বের আয়োজন করে। নবীন শিক্ষার্থীদের চাল চলন যেন শিক্ষক- শিক্ষিকা ও সিনিয়র শিক্ষার্থীদের জন্য অবমাননাকর না হয় সে লক্ষ্যে এক ধরনের পরিচয় পর্বের রীতি আছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। কিন্তু এই ডিসকোর্সের আড়ালে র্যাগিংয়ের অপসংস্কৃতি গড়ে তোলে কেউ কেউ। যা নবীন শিক্ষার্থীদের জন্য যথেষ্ট অবমাননাকর ও অসহনীয়। তাই ইংরেজি বিভাগ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ৪৪ তম আবর্তন পরিবর্তনের ডাক দিয়ে সেলফি উৎসবে বরণ করে নিলো ৪৫ তম আবর্তনকে।

সাংস্কৃতিক রাজধানী জাহাঙ্গীরনগরে ৪৪ তম আবর্তনের অংশগ্রহণে এক মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে চমকে দেয় নবীনদের। সপ্রাণ উপস্হিতি,করতালিমুখর নাচ-গান,আবৃত্তি,চৌকষ চলচিত্রায়ণ,মনমুখর আড্ডা,সেলফি উৎসব,ভরপেট লাঞ্চ সব মিলিয়ে সব ছাড়িয়ে এ ছিলো এক সৃষ্টিশীল অভ্যর্থনা। এ সুন্দর আয়োজন নিয়ে ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জনাব মাশরুর শহিদ হোসেন বলেন,৪৪ তম আবর্তনের সৃজনশীল নবীনবরণে আমি উৎফুল্ল।

৪৪ তম আবর্তনের তাদের এহেন কর্ম ও সৃষ্টিতে তারা ক্যাম্পাসের ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবে। তিনি বলেন আমাদের সবাই কে অবমাননাকর র্যাগিং অপসংস্কৃতিকে না বলার পাশাপাশি সৃজনশীল পরিচয় পর্বকে হ্যাঁ বলা উচিত। কথা হচ্ছিলো ইতিমধ্যে ক্যাম্পাসে নতুন যুগের ফেরিওয়ালা হয়ে উঠা ইংরেজি বিভাগ ৪৪ আবর্তনের মুখপাত্র সামির ইয়াছির শাফিনের সাথে। তিনি বলেন,যুগ বদলেছে, কনসেপ্ট গুলোও বদলেছে।এখন নতুন সময়ের নতুন চাহিদার আলোকে সিনিয়র জুনিয়র সম্পর্কগুলো গড়ে উঠবে। তিনি আরো বলেন আমাদের এই ভিন্ন আয়োজনে ক্যাম্পাসে অন্যান্য বিভাগ আমাদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

৪৪ তম আবর্তনের রসায়ের মুখপাত্র দেলোয়ার হোসেন ইংরেজি বিভাগের এই আয়োজন সম্পর্কে বলেন,নতুন কিছু করতে সাহস লাগে,সামর্থ লাগে। সেটা ইংরেজি বিভাগ করে দেখিয়েছে।একই আবর্তনের ইতিহাসে বিভাগের মাহবুব আলম বলেন, যুগান্তকারী পরিবর্তন গুলো আইন করে নয়,স্বতঃফূর্ত ভাবে হয়। যাদের নিয়ে এতো আয়োজন ইংরেজি বিভাগের নবীন শিক্ষার্থী কথা বলেছিলাম তাদের সাথে। তারা বলেন আমরা আনন্দিত,গর্বিত। তারা সিনিয়রদের চমৎকার নবীন বরণে সিনিয়র জুনিয়র সম্পর্ক গুলো আরো সুদৃঢ় হওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।