মেইন ম্যেনু

নবজাতকের জন্য যে জিনিসগুলো কেনা একেবারেই অপ্রয়োজনীয়

বর্তমানে শিশু পণ্যের সহজলভ্যতার জন্য নতুন বাবামায়েরা তাদের অনাগত ও সদ্যজাত সন্তানের জন্য অনেক জিনিস কিনে ঘর ভরে ফেলেন। কিন্তু এই জিনিসগুলোর অধিকাংশই শিশুর কোন কাজেই লাগে না বরং শিশুর স্বাস্থ্যের জন্যও ক্ষতিকর হয়ে থাকে। সুতরাং নবজাতকের জন্য কিছু কেনার আগে কিছু সতর্কতা প্রয়োজন। আসুন জেনে নেই এমন কিছু জিনিসের কথা যা নবজাতকের জন্য কেনার কোনই প্রয়োজন নেই।

১। বেবির বালিশ

আপনার নবজাতক সন্তানের বালিশের কোন প্রয়োজন নেই। আসলে শিশুর দুর্বল মাথাটি যদি বালিশে ডুবে থাকে তাহলে শিশুর দমবন্ধও হয়ে যেতে পারে। শিশুদের বালিশ তৈরিতে বিভিন্ন ধরণের জিনিস ব্যবহার করা হয় যেমন- থারমোকুল বল, সরিষা বীজ, নাল অথবা তুলা। বালিশের সেলাইটা যদি কোন কারণে ছুটে যায় তাহলে বিপত্তি হতে পারে। অশ্বিনী ক্লিনিকের ড. গীতাঞ্জলী শাহ বলেন, “নবজাতকের নাল বালিশ ব্যবহার সমানভাবেই বিপদজনক কারণ এতে শিশুর ঘাড় শক্ত হয়ে যেতে পারে”।

২। বেবি ওয়াকার

শিশুকে হাঁটা শিখানোর জন্য ওয়াকার ব্যবহার কারা বিপর্যয়ের শামিল। ইন্ডিয়ান এ্যাসোসিয়েশন অফ পেডিয়াট্রিক্স এর সাবেক প্রেসিডেন্ট ড. রোহিত আগড়ওয়াল এর মতে, শিশুর নিতম্বের ক্রমবিকাশে বিপত্তি সৃষ্টি করে বলে পশ্চিমের অনেক দেশেই যেমন- যুক্তরাজ্য, কানাডাতে শিশুদের জন্য ওয়াকার ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।

৩। চেঞ্জিং টেবিল

শিশুর ডায়াপার পরিবর্তনের জন্য আলাদা একটি টেবিল কেনার কোনোই প্রয়োজন নাই। তারচেয়ে বরং একটি রেক্সিন বা টেবিলক্লথ কিনে নিন। ডায়াপার পরিবর্তনের সময় রেক্সিনের উপর শিশুকে রেখে কাজ সারুন। তবে ডায়াপার পরিবর্তনের সময় কখোনোই শিশুকে একা রেখে কোথাও যাবেন না।

৪। মাথার ব্যান্ড

শিশুর মাথায় লাগানোর জন্য এখন অনেক সুন্দর ফুলযুক্ত ব্যান্ড পাওয়া যায় যা নবজাতক বা তারচেয়ে একটু বড় শিশুকে পড়ালে অনেক ভালো লাগে। কিন্তু এই ব্যান্ড অনেক ব্যথার সৃষ্টি করতে পারে। তাই শিশুর জন্য প্লাস্টিকের হেয়ার ব্যান্ড কেনা বাবামায়ের অনেক বড় একটি ভুল।

৫। প্যাসিফায়ার বা চুষনি

ড. রোহিত আগড়ওয়াল এর মতে, প্যাসিফায়ার বা চুষনি ব্যবহার করলে শিশুর নিপল কনফিউশন তৈরি করে, মুখগহ্বরের গঠন বাধাগ্রস্থ হয় এবং ভবিষ্যতে দাঁতের রোগ সৃষ্টি করতে পারে, পেটব্যথা হয় ও সংক্রমণকে আমন্ত্রণ জানায়। শিশুর প্রয়োজনীয় জিনিসের তালিকা থেকে বাদ দিন এটি।

৬। শিশুর জন্য শৌখিন পোশাক

নবজাতকের জন্য শৌখিন পোশাকের কোনই প্রয়োজন নেই। সূতির পোশাকই তার জন্য ভালো ও নিরাপদ। শৌখিন কাপড়ের উপাদানগুলো শিশুর শরীরে র‍্যাশ ও ইনফেকশন তৈরি করতে পারে।

৭। বেবি পাউডার ও ময়েশ্চারাইজার

আন্তর্জাতিকভাবে প্রত্যয়িত প্রেগনেন্সি, লেক্টেশন ও চাইল্ড নিউট্রিশন এর কাউন্সেলর সোনালী শিভলানির মতে, বিভিন্ন ধরণের সুগন্ধিপণ্য যেমন- ময়েশ্চারাইজার ও ট্যালকম পাউডার ব্যবহার নবজাতক শিশুর দেহে অ্যালার্জি ও ইনফেকশন সৃষ্টি করতে পারে।

৮। খেলনা জীবজন্তু

আপনার সদ্যজাত শিশুর আসলেই কোন খেলনার প্রয়োজন নেই। শিশুর বিছানায় খেলনা জীবজন্তু রাখলে দুর্ঘটনাবশত দমবন্ধ হওয়ার মত সমস্যা হতে পারে এবং এগুলোর পশম শিশুর নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

৯। ডিজাইনার বেবি বেডিং

শিশুর জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা বিছানাগুলো সাধারণত খুবই নরম ও গভীর হয়। এগুলোর পরিবর্তে সাধারণ ও দৃঢ় বিছানায় শিশুকে শোয়ানো প্রয়োজন, কারণ এতে শিশুর পিঠের গঠন ঠিক ভাবে হয়। দ্যা আমেরিকান একাডেমী অফ পেডিয়াট্রিক্স শিশুর জন্য আলাদা কোন বিশেষ বিছানা, কম্বল, খেলনা পশুপাখি বা বালিশ ব্যবহারকে অনুমোদন করে না। এই জিনিস গুলো Sudden Infant Death Syndrome বা SIDS এর ঝুঁকি বাড়ায়।

১০। সুগন্ধি ডিটারজেন্ট

শিশুর কাপড় ধোয়ার জন্য আলাদা কোন সুগন্ধিযুক্ত দামী ডিটারজেন্ট ব্যবহার করার কোনই প্রয়োজন নেই। পরিবারের সদস্যদের কাপড়চোপড় যে সাধারণ ডিটারজেন্ট দিয়ে ধোয়া হয় সেই ডিটারজেন্ট দিয়েই আপনার নবজাতকের কাপড় ধোয়ার কাজটিও সেরে ফেলুন।

কাজেই নিরাপত্তা, সুস্বাস্থ্য ও মিতব্যয়িতা উভয়ের জন্যই উপরে উল্লেখিত জিনিসগুলো বাদ দেয়া উচিৎ।