মেইন ম্যেনু

নাটের গুরু জুনায়েদের সেই ‘বড় ভাই’ গ্রেফতার

ফেসবুকে বহুল আলোচিত বখাটে যুবক জুনায়েদের সেই বড় ভাই রিজভীকে গ্রেফতার করেছে ধানমন্ডি মডেল থানা পুলিশ। সোমবার রাত ১২টায় গেন্ডারিয়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাব ইন্সপেক্টর নুরুল হক জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত রিজভী হলো জুনায়েদের সেই বড় ভাই যার নির্দেশে (জুনায়েদের দেয়া তথ্যানুসারে) সে ঘটনার দিন ধানমন্ডির অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের এ লেভেলের ছাত্র নুরুল্লাহর ওপর উপর্যুপরি নির্যাতন চালিয়ে সেই দৃশ্য মোবাইল ক্যামেরায় ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছিল। রিজভীর কাছ থেকে ঘটনার নেপথ্যে কারণ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে জুনায়েদের দুই দিনের রিমান্ড শেষে আজ তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাকে আবার রিমান্ডে আনা হবে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে নুরুল হক তাৎক্ষণিকভাবে কিছু বলতে রাজি হননি। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিজভীকে রিমান্ডে আনার জন্য আবেদন করা হতে পারে।

ধানমন্ডি থানা পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, দুই দিনের রিমান্ডে জুনায়েদের কাছ থেকে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। কেবল এসএসসি পাশ করেও কিভাবে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতো, বাংলা ও ইংরেজি মিশেলে কথা বলতো, অতি আদুরে কিভাবে মাদকাশক্তিতে জড়িয়ে পড়লো, অভিজাত এলাকা ধানমন্ডির বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কিভাবে শিক্ষার্থীরা খোলামেলা কথাবার্তা ও চলাফেরা করে সেই সম্পর্কে বহু অজানা তথ্য জানিয়েছে জুনায়েদ। তদন্তের স্বার্থে পুলিশ কিছুই প্রকাশ করছে না।

জানা গেছে, জুনায়েদের কাছ থেকে প্রাপ্ত বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত যাচাই-বাছাই করতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সোমবার বাদী নুরুল্লাহর সঙ্গে কথা বলেছে। জুনায়েদ পুলিশকে জানিয়েছে, রিজভীর সঙ্গে তার পরিচয় মাস ছয়েকের হলেও নুরুল্লাহর সঙ্গে রিজভীর কয়েক বছরের সম্পর্ক। নারীঘটিত সমস্যাকে কেন্দ্র করে রিজভীর নির্দেশে সে নুরুল্লাহর ওপর শারীরিক নির্যাতন চালায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, নুরুল্লাহর আচার আচরণও রহস্যজনক। থানায় মামলা দায়েরের পরও সে জুনায়েদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেছিল। কিন্তু পুলিশের কাছে সে ওই তথ্য গোপন রেখেছে। এ মামলাটি তদন্তের মাধ্যমে উঠতি বয়সি তরুণদের বিভিন্ন অপকর্মের নতুন নতুন তথ্য পাওয়া যাবে বলে ওই কর্মকর্তা মন্তব্য করেন।