মেইন ম্যেনু

নারিকেল ছোবড়ার পণ্যে কর মওকুফ

শর্তসাপেক্ষে নারিকেলের ছোবড়ার আঁশ দিয়ে স্থানীয়ভাবে প্রস্তুতকৃত পণ্যে মূল্য সংযোজন কর (মূসক/ভ্যাট) অব্যাহতি সুবিধা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। স্থানীয় কুটির শিল্পের প্রসারে ভ্যাট মওকুফ চেয়ে এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সুবিধা দেয়া হচ্ছে।

সম্প্রতি এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান স্বাক্ষরিত বিশেষ আদেশে এ কর অব্যাহতির কথা জানানো হয়েছে।

এ সুবিধা ২৭ জানুয়ারি থেকে কার্য্কর ধরা হয়েছে বলে এনবিআর সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সূত্রটি জানায়, স্থানীয় কুটির শিল্পের প্রসার ও দেশীয় পণ্য রপ্তানির প্রসারে এ সুবিধা দেয়া হয়েছে। বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য মীর শওকত আলী বাদশাসহ দেশের একাধিক জায়গা থেকে এ কর মওকুফের সুবিধা চেয়ে আবেদন করা হয়। সেই আবেদনে রপ্তানিকৃত পণ্যের প্রসারে ও স্থানীয় কুটির শিল্পের সুরক্ষায় এ ‍সুবিধা চাওয়া হয়। তারা নারিকেলের ছোবড়া দিয়ে তৈরিকৃত বিভিন্ন পণ্য বিদেশের রপ্তানির তথ্য দিয়েছিলেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআরের মূসক আইনের ধারা ১৪ এর উপধারা (২) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে নারিকেলের ছোবড়া থেকে প্রস্তুতকৃত পণ্যের স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে প্রযোজ্য সমুদয় ভ্যাট আগামী ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত শর্ত সাপেক্ষে সাময়িক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

শর্তগুলো হলো: সংশ্লিষ্ট পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে মূসক আইনের ১৫ ধারা এবং মূসক বিধিমালার ৯ এর আলোকে মূসক নিবন্ধনপত্র গ্রহণ করতে হবে; সংশ্লিষ্ট পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে মূসক আইনের ৩১, ৩২ ও ৩৫ এ উল্লিখিত মূল্য সংযোজন কর সংক্রান্ত হিসাবরক্ষণসহ কর চালানপত্র ও দাখিলপত্রের যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে হবে। উল্লিখিত দুইটি বিষয়ে আনুষ্ঠানিকতা পালিত না হলে ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা স্বয়ংক্রিয়ভাবে অকার্য্কর বলে গণ্য হবে ও আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা অনুসারে দণ্ডনীয় অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে।

উল্লেখ্য, নারিকেলের ছোবড়া (কোয়ের) থেকে ম্যাট্রেস, ওয়ালম্যাট, পাপোশ, রশি ইত্যাদি ব্যবহার্য ও সৌখিন পণ্য তৈরি হয়।