মেইন ম্যেনু

নারী ফুটবলারদের অবেহলা, সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বাফুফে

বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব-১৬ নারী দলের খেলোয়াড়দেরকে লোকাল বাসে করে বাড়িতে পাঠানো নিয়ে জল ঘোলা হয়েছে মেলা। এ নিয়ে ফুটবল ফেডারেশের কর্মকর্তারা ব্যক্তিগতভাবে নানা বক্তব্য দিয়েছেন গণমাধ্যমে। দেয়া হয়েছে একটি বিবৃতিও। এবার নারী ফুটবলারদের ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন-বাফুফে।

শুক্রবার বিকাল চারটায় ফুটবল ফেডারেশনের কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হবে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন এতে উপস্থিত থাকতে পারেন বলেও জানিয়েছেন তারা।

বাফুফের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অনুর্ধ্ব-১৬ দলের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানাতেই এই সংবাদ সম্মেলন। কিন্তু সব ছাপিয়ে বাসে হেনাস্থার ঘটনাই প্রধান ইস্যু হয়ে উঠবে এ সংবাদ সম্মেলনে।

চলিত মাসের প্রথম দিকে ঢাকায় অনুষ্ঠিত এএফসি অনুর্ধ্ব-১৬ বাছাই পর্বে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সাড়া জাগায় বাংলাদেশের মেয়েরা। ঐ টুনামেন্টে শেষে ৭ সেপ্টেম্বর দলের ৯ ফুটবলার তাদের গ্রামে বাড়ি ময়মনসিংহের কলসিন্দুর যাওয়ার সময় লোকাল বাসে লাঞ্চনার শিকার হন।

এলাকায় পৌঁছলে কলসিন্দুর স্কুল এন্ড কলেজের শারিরীক শিক্ষক জোবেদ আলী তাদের আরেক দফা লাঞ্ছিত করেন। মারধর করা হয় একজন ফুটবলারের বাবাকে।

ঘটনা দুটি সারা দেশে সমালোচনার ঝড় তোলে। ইতিহাস গড়া এই মেয়েদের লোকাল বাসে পাঠিয়ে চরম অবহেলা করায় কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয় ফুটবল ফেডারেশনকে। বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয় ফেডারেশনকে। এরপর দায়সরা গোছের একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি করে মিডিয়ায় পাঠানো হয়, যাতে নিজেদের দায়িত্ব এড়ানোর চেষ্টা করা হয়। তবে শুধু সাধারণ মানুষই নয়, লোকাল বাসে করে বাড়িতে পাঠানোয় বাফুফের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন খোদ মেয়ে ফুটবলাররাও।

তবে ঐ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত বাফুফে সাভাপতি কাজী সালাউদ্দিন ও নারী ফুটবল কমিটির প্রধানের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ঘটনার সময় নারী ফুটবল উইংয়ের প্রধান মাহফুজা আক্তার কিরণ ছিলেন দেশের বাইরে। তিনি ঢাকায় ফিরেছেন। উপস্থিত থাকবেন শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে।

ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির কাজের অগ্রগতিও জানা যাবে এদিন। ফুটবলারের বাবাকে মারধরের ঘটনায় ইতিমধ্যে বরখাস্ত করা হয়েছে কলসিন্দুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের সেই শিক্ষককে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হবে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের চূড়ান্ত পর্ব। ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাছাইপর্বের ‘সি’ গ্রুপ থেকে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে মূল পর্বে উঠেবাংলাদেশ। ইরানকে ৩-০ গোলে, সিঙ্গাপুরকে ৫-০, কিরগিজস্তানকে ১০-০, চীনা তাইপেকে ৪-২ এবং আরব আমিরাতকে ৪-০ গোলে হারায় কৃষ্ণারা।