মেইন ম্যেনু

নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

গ্লোবাল ফান্ড সম্মেলন শেষে পাঁচ দিনের সরকারি সফরে কানাডা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এয়ার কানাডার একটি ফ্লাইটে স্থানীয় সময় রোববার বিকাল ৩টায় প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্ক সিটির লা গার্ডিয়া বিমানবন্দরে পৌঁছালে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন তাকে স্বাগত জানান। এ সময় জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেনও উপস্থিত ছিলেন।

আগের দিন ম্যানহাটনে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিরাপত্তার কড়াকড়ি থাকলেও রোববার যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরের বাইরে জড়ো হয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর নিউইয়র্ক আগমন উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ‘প্রতিরোধ কর্মসূচি’ ঘোষণা করলেও বিমানবন্দরে তাদের কোনো নেতা-কর্মীকে দেখা যায়নি। বিএনপির ওই কর্মসূচির পাল্টায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোও ‘যেখানে বিএনপি-জামাত-সেখানেই প্রতিরোধ’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছিল।

বিমানবন্দর থেকে মোটর শোভাযাত্রা করে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে যাওয়া হয় ম্যানহাটনের হোটেল ওয়ার্ল্ডোফ এস্টোরিয়ায়। নিউ ইয়র্ক সফরে সেখানেই তিনি থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচি
আজ সোমবার জাতিসংঘ সদর দফতরে উদ্বাস্তু ও অভিবাসন সংক্রান্ত সাধারণ পরিষদের উচ্চপর্যায়ের প্ল্যানারি বৈঠকে ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা। এরপর তিনি মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সাং সু চির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন।

মঙ্গলবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনের সাধারণ আলোচনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। ২১ সেপ্টেম্বর বিকেলে সাধারণ আলোচনায় বক্তব্য দেবেন তিনি।

‘গ্লোবাল কমপ্যাক্ট ফর সেফ, রেগুলার অ্যান্ড অর্ডারলি মাইগ্রেশন: টুওয়ার্ডস রিয়ালাইজিং দ্য ২০৩০ এজেন্ডা ফর সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড অ্যাচিভিং ফুল রেসপেক্ট ফর দ্য হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড মাইগ্র্যান্টস’ শীর্ষক গোলটেবিলে যৌথভাবে সভাপতিত্ব করবেন শেখ হাসিনা।

পরে প্রধানমন্ত্রী হোটেল ম্যারিয়ট ইস্টসাইডে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে আয়োজিত কাউন্টার টেররিজমের ওপর এশিয়ান লিডার্স ফোরামের বৈঠকে যোগ দেবেন।

জাতিসংঘ সদর দফতরের কনফারেন্স রুম-২-এ সাউথ সাউথ-বিষয়ক জাতিসংঘ অফিসে বাংলাদেশ আয়োজিত পাবলিক সার্ভিস ডেলিভারিতে স্কেলিং আপ ইনোভেশনে সাউথ সাউথ অ্যান্ড ট্রায়াঙ্গুলার কো-অপারেশন-বিষয়ক এক বৈঠকে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা আয়োজিত উদ্বাস্তু-বিষয়ক এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি জাতিসংঘ সদর দফতরে ওবামা আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজ সংবর্ধনায় যোগ দেবেন।

২১ সেপ্টেম্বর সুইডিস প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন লো ভেশ আয়োজিত ডিসেন্ট ওয়ার্ক অ্যান্ড ইনক্লুসিভ গ্রোথ-বিষয়ক সোশ্যাল ডায়ালগ-সংক্রান্ত গ্লোবাল ডিলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনার যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। তিনি জাতিসংঘ সদর দফতরে পানি-বিষয়ক উচ্চপর্যায়ের এক প্যানেল বৈঠকে যোগ দেবেন।

শেখ হাসিনা ২১ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে হোটেল গ্র্যান্ড হায়াতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেওয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ।অংশ নেবেন পরে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেবেন।

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দেওয়ার সময় বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এ ছাড়া কমনওয়েলথ মহাসচিব, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের নির্বাহী চেয়ারম্যান ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার বৈঠকে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

তিনি ২২ সেপ্টেম্বর সড়কপথে ভার্জিনিয়ায় যাবেন ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের কাছে। ২৫ সেপ্টেম্বর এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে তিনি দেশের উদ্দেশে ওয়াশিংটন ডিসি ত্যাগ করবেন বলে জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের প্রধান ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন জানান। ২৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে প্রধানমন্ত্রী ঢাকায় ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।