মেইন ম্যেনু

নিজামীর ফাঁসি: জাতিসংঘের দুঃখ প্রকাশ

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন। খবর-রেতে।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেছেন, জাতিসংঘ প্রধান যে কোনো প্রেক্ষাপটেই মৃত্যুদণ্ডের মতো শাস্তির বিপক্ষে। তিনি আরো বলেন, মামলাটি যেভাবে পরিচালিত হয়েছে তা নিয়ে জাতিসংঘ আগে থেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে।

বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার উদ্বেগ:

এদিকে, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন – হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, তুরস্ক এবং পাকিস্তান এ ফাঁসির রায়ের বিরুদ্ধে তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

জাতিসংঘ বলছে, যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারে আন্তর্জাতিক মান রক্ষা করা হয়নি। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলেছে, নিজামীর পক্ষে মাত্র চারজন সাক্ষীকে সাক্ষ্য দেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক লিখিত বিবৃতিতে বলা হয়, গভীর অনুতাপের সাথে তারা নিজামীর ফাঁসি সম্পর্কে অবগত হয়েছে।

‘আমরা এই ফাঁসির তীব্র নিন্দা জানাই। কারণ আমরা বিশ্বাস করি নিজামীর এই শাস্তি প্রাপ্য ছিল না এবং আমরা মরহুমের প্রতি আমাদের শোক প্রকাশ করছি।’

বিবৃতিতে বলা হয়, সামাজিক শান্তি রক্ষায় সচেষ্ট ‘বাংলাদেশি ভাইদের’ প্রতি তুরস্ক সংহতি জানিয়ে যাবে। তুরস্ক বলছে, তারা তিন বছর ধরে বাংলাদেশ মৃত্যুদণ্ড রহিত করার আহ্বান জানিয়ে আসছে। কারণ মৃত্যুদণ্ডের বাংলাদেশে সামাজিক উত্তেজনা তৈরি হচ্ছে।

পাকিস্তান সংসদে নিন্দা প্রস্তাব:

মাওলানা নিজামীর ফাঁসির রায় কার্যকর করায় পাকিস্তানের পক্ষ থেকেও তীব্র প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে।

নিজামীর ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় গভীর উদ্বেগ জানিয়ে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে গতকাল বুধবার সর্বসম্মতভাবে একটি নিন্দা প্রস্তাব পাস হয়েছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এ ঘটনায় ‘গভীরভাবে মর্মাহত’। এ ছাড়া গণহত্যায় নিজামীর সম্পৃক্ততাকে ‘কথিত অপরাধ’ উল্লেখ করে দেশটি ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। সেই সঙ্গে বলেছে, ‘পাকিস্তানের সংবিধান ও আইন সমুন্নত’ রাখাই ছিল তাঁর অপরাধ।

মতিউর রহমান নিজামীকে নিয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গত এক সপ্তাহের মধ্যে দুই দফা বিবৃতি দিল। এর আগে ৬ মে বিবৃতি দিয়েছিল তারা।

গত সোমবার ঢাকায় পাকিস্তানের হাইকমিশনার সুজা আলমকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে ইসলামাবাদের দেয়া ৬ মের বিবৃতিকে সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য বলার দুই দিন পর আবার দেশটি একই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানায়।

পাক হাইকমিশনারকে পাল্টা তলব:

ওদিকে পাল্টা প্রতিক্রিয়া হিসেবে, আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ইসলামাবাদে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার মো. নাজমুল হুদাকে তলব করা হয়েছে।

প্রতিবাদে পাকিস্তানের হাইকমিশনার সুজা আলমকে আজই পাল্টা তলব করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ সময় পাকিস্তানের আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটি কূটনৈতিকপত্র তুলে দেয়া হয় পাকিস্তানের হাইকমিশনারের হাতে।