মেইন ম্যেনু

নিজের গয়না বিক্রি করে শতাধিক টয়লেট বানালেন তিনি

গ্রামের অধিকাংশ পরিবারে নেই স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার। খোলা আকাশের নিচে ঝোপ-ঝাড়ের আড়ালেই সাড়েন প্রাকৃতিক কর্ম। কিন্তু মানুষের এই দুর্দশা মেনে নিতে পারেননি তিনি। তাদের জন্য কিছু করার কথা ভাবছিলেন।

এর মাঝেই প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে অনুপ্রেরণা পান ভারতের ছত্রিশগড়ের যশপুর জেলার কাজল রায় নামের এক নারী। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির স্বচ্ছ ভারত অভিযান ওই নারীর অনুপ্রেরণার উৎস। আর তাই তো ছত্রিশগড়ের এই নারী পিছপা হননি নিজের গয়না বন্ধক রেখে সেই টাকা দিয়ে গ্রামের মানুষের জন্য শতাধিক শৌচাগার তৈরি করতে।

যশপুর জেলার সানা গ্রামের কাজল রায়ের কাছে এ সিদ্ধান্ত নেয়াটা সহজ ছিল না। অনেক বাধার মধ্য দিয়ে তাকে যেতে হয়। গয়না বন্ধক রেখে যে টাকা পেয়েছিলেন তা দিয়ে তৈরি করেন ইট। এই কাজে তাকে সাহায্য করেছিলেন গ্রামের অন্য নারীরা। প্রথমে ৫০টি শৌচাগার তৈরি করেন তিনি। গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে শৌচাগারের গুরুত্ব সম্পর্কে বোঝানোর কাজও চালাতে থাকেন।

যখন গয়না বন্ধকের টাকা কম পড়তে থাকে, তখন তিনি নিজের কিছু গয়না বিক্রি করে দেন। তার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল গ্রামের প্রত্যেক বাড়িতে শৌচাগার বানিয়ে দেয়া।

দেশটির বার্তাসংস্থা এএনআইকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যশপুর জেলা প্রশাসক প্রিয়াঙ্কা শুক্লা বলেন, কাজল রায় ভালো কাজ করেছেন। তার এ উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। এ কাজ অন্যদের কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন তাকে সব ধরনের সহায়তা করবে।