মেইন ম্যেনু

নিজের শিউরে ওঠা যৌনজীবনের কথা জানালেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

সিনেমার মতোই রক্ত, ছুরিকাঘাত, ইনসেস্ট আর অদ্ভুত থেকে অদ্ভুততর যৌনাচারের কাহিনি। কেবল পার্থক্য এখানেই— এই গল্পটি বাস্তব। কোনও সেলুলয়েড-মায়া তাকে সৃষ্টি করেনি।
গল্পটা তাঁর অভিনীত ‘অরিজিন্যাল সিন’ ছবির চিত্রনাট্যকেই যেন পুনরাবৃত্ত করে। সেই রক্ত, ছুরিকাঘাত, ইনসেস্ট আর অদ্ভুত থেকে অদ্ভুততর যৌনাচারের কাহিনি। কেবল পার্থক্য এখানেই— এই গল্পটি বাস্তব। কোনও সেলুলয়েড-মায়া তাকে সৃষ্টি করেনি।

নিজের যৌনজীবন নিয়ে সম্প্রতি মুখ খলেছেন হলিউড ডিভা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। অতীতে এই সুন্দরী জানিয়েছিলেন, তিনি জীবনে চারজন পুরুষের শয্যাসঙ্গিনী হয়েছেন। এঁদের মধ্যে তিনজনই তাঁর কোনও না কোনও সময়ের স্বামী। কিন্তু সম্প্রতি এই ৪১ বছর বয়সি হার্টথ্রব যা জানালেন, তাকে লিপিবদ্ধ করতে বসলে কলমের কালি শুকিয়ে যায়।

২০ অগস্ট অ্যাঞ্জেলিনা তাঁর বর্তমান স্বামী অভিনেতা ব্র্যাড পিটের বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা এনেছেন। কারণ হিসেবে জানিয়েছেন, দু’জনের অসেতুসম্ভব মত। এই প্রসঙ্গে তাঁর সঙ্গে গণমাধ্যমগুলি যোগাযোগ করলে তিনি প্রাসঙ্গিকতা না হারিয়েই বলে যান তাঁর জীবনের এমন কিছু ছায়াচ্ছন্ন অধ্যায়ের কথা, যা ‘অরিজিন্যাল সিন’-এর মতো শ্বাসরোধকারী ছবির চিত্রনাট্যকেও হার মানায়।

• ২০০৭-এই অ্যাঞ্জেলিনা এক পত্রিকাকে জানিয়েছিলেন, কিনডারগার্টেন-এ পড়ার সময়েই তিনি ‘কিসি গার্লস’ নামের এক গ্রুপের সদস্য ছিলেন। নিতান্ত শিশুদের নিয়ে তৈরি এই গ্রুপের কাজ ছিল সহপাঠী ছেলেদের সঙ্গে এমন কিছু খেলায় লিপ্ত থাকা, যার গায়ে যৌনগন্ধ আঁট হয়ে বিরাজ করে।

• মাত্র ১৪ বছর বয়সে অ্যাঞ্জেলিনা তাঁর কুমারিত্ব হারান। আর এ বিষয়ে তাঁর মা সবকিছুই জানতেন। যে সময়ে তিনি তাঁর তৎকালীন বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে দরজা বন্ধ করেছিলেন, সেই সময়ে তাঁর মা পাশের ঘরেই ছিলেন।

• গোটা টিন এজ জুড়ে অ্যাঞ্জেলিনা এক বিচিত্র ফেটিশকে প্রশ্রয় দেন। ছুরি-কে ঘিরে আবর্তিত হতে থাকে তাঁর লিবিডো। তুমুল আশ্লেষের সময়েও তাঁর মনে হতে থাকে কিছুই যথেষ্ট নয়। একদিন নিবিড় মুহূর্তে তাঁর বয়ফ্রেন্ডকে তিনি ছুরি দিয়ে আঘাত করেন। বয় ফ্রেন্ডও তাঁকে প্রত্যাঘাত করেন। রক্তপাত তাঁকে এক বিপুল আনন্দের সন্ধান দেয়। কেটে-কুটে রক্তাক্ত হতে থাকে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ। কিন্তু শরীরী খেলায় সেই যন্ত্রণা অনুভূত হত না।

• ২০ বছর বয়স নাগাদ এমন কোনও ড্রাগ বাজারে ছিল না, যা অ্যাঞ্জেলিনা নেননি। কোকেন, এলএসডি, হেরোইন— নেশার তুমুল স্রোতে নিজেকে ভাসিয়ে দেন তিনি। তাঁর প্রথম স্বামী জনি লি মিলার তাঁকে সেই অবস্থা থেকে উদ্ধার করেন, একথা তিনি আজও মুক্তকণ্ঠে স্বীকার করেন।

• ১৯৯৬-এ তাঁর সঙ্গে আলাপ হয় মডেল-অভিনেত্রী জেনি শিমিজু-র। তাঁর মধ্যে এক পরিপূর্ণ নারী-কে খুঁজে পান লারা ক্রফ্টের চরিত্রাভিনেত্রী। শুরু হয় এক তুফানি সমকামী রোম্যান্স।

• ২০০০ সালের গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে অযাঞ্জেলিনাকে দেখা গিয়েছিল তাঁর নিজের ভাইয়ের সঙ্গে নিবিড় ওষ্ঠচুম্বনে আবদ্ধ হতে। পরে অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড-এর রোড কার্পেটেও একই দৃশ্য দেখা গিয়েছিল।

• ২০০০-এ তিনি বিয়ে করেন বিলি বব থর্নটনকে। সেই বিয়ে টিকেছিল মাত্র তিন বছর।

• পরের স্বামী ব্র্যাড পিট। বিয়ের আয়ু মাত্র দু’বছর।
বার বার বাসনা-তুফানে ওঠানামা। তবু কি মিটিল সাধ? না, একেবারেই নীরব অ্যাঞ্জেলিনা এই বিষয়ে। ব্র্যাডের পরে কে? জিজ্ঞাসা করেনি কেউ। তবে এমনটা জিজ্ঞাসা করাই যেত যে, ব্র্যাডের পরে কি আবার বিবাহ? নাকি আবার বাসনা-তুফানে ভাসবেন দুই সন্তানের মা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি?