মেইন ম্যেনু

নির্বাচনী সহিংসতার আগুনে উজিরপুরে মহিলাসহ দগ্ধ ২

কল্যান কুমার চন্দ, বরিশাল: বরিশালের উজিরপুরের বরাকোঠা ইউনিয়নে হারাশিয়া এলাকায় বিজয়ী ইউপি সদস্য ইকবাল হোসেনের সমর্থকদের ৩টি বাড়ীতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে পরাজিত প্রার্থী প্রফুল্ল হালদারের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনায় বিজয়ী মেম্বরের সমর্থক খলিলুর রহমান, মোক্তার হোসেন ও সোহরাব হোসেনের ৩টি বসত ঘর পুড়ে যায়। মানুষ রুপী হিং¯্র দানবদের দেয়া আগুনে খলিলের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম(৬৫)’র ২ পা ও সোহরাব(৬৮) নামে আরও এক বৃদ্ধর হাত ঝলসে যায়। ঝলসে যাওয়া আনোয়ারা বেগমের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় উজিরপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বসত ঘর ছাড়াও ওই ৩ পরিবারের ১২টি হাস-মুরগী এবং তা দেয়ারত হাঁস-মুরগীর ডিমও পুড়ে যায়।

দগ্ধ আনোয়ারা বেগম জানান, ২২ মার্চের ইউপি নির্বাচনে তারা ৩ পরিবার ২নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী ও ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি মোঃ ইকবাল হোসেনের পক্ষে প্রচার প্রচারনা করেন এবং সে নির্বাচিত হলে তার প্রতিদ্বন্ধি ওই ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী প্রফুল্ল হালদার ও তার কর্মী সমর্থকরা হিন্দু অধ্যুষিত ওই এলাকার ৩ সংখ্যালঘু মুসলিম পরিবারের উপর ক্ষিপ্ত হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় প্রফুল্ল হালদার বুধবার ওই ৩ পরিবারের উপর ষড়যন্ত্র মূলক ২টি মামলা দায়ের করে এবং পুলিশের গ্রেফতার আতংকে বাড়ীগুলো প্রায় পুরুষ শূন্য হয়ে পড়ে। এই সুযোগ কাজে লাগাতে শুধু মামলা করে থেমে নেই প্রফুল্ল বাহিনী, বৃহস্পতিবার রাতে তার কর্মী সমর্থকরা একে একে ইকবালের সমর্থক খলিলুর রহমান সরদার, মোক্তার হোসেন সিকদার ও সোহরাব হোসেন বেপারীর ঘরে অগ্নিসংযোগ করে।

আগুন নেভাতে গিয়ে খলিলের স্ত্রী আনোয়ারার দুই পা এবং সোহরাব হোসেনের ডান হাত পুড়ে যায়। তদের ডাক-চিৎকারে স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও ততক্ষনে বসতঘর ৩টি ছাই হয়ে যায়। খবর পেয়ে রাতেই উজিরপুর মডেল থানার এ.এস.আই ইয়ার হোসেন সঙ্গিও ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। তবে তারা এ ঘটনায় জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পরাজিত মেম্বর প্রার্থী প্রফুল্ল হালদারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমার প্রতিপক্ষরা আমাকে ফাসাতে নয়া কৌশলী জাল পেতেছে। দগ্ধ আনোয়ারাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং সোহরাবকে ধামুরার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। উজিরপুর থানার ওসি মো. নুরুল ইসলাম(পিপিএম) জানান, অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এছাড়াও উপজেলার সাতলা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডে বিজয়ী মেম্বর হারুন হাওলাদারের সমর্থক সান্টু হাওলাদার,রিপন হাওলাদারসহ একদল সন্ত্রাসী শুক্রবার বেলা ১১ টায় পরাজিত মেম্বর প্রার্থী ফারাহীন বালীর সমর্থক অলি হাওলাদারের বাড়ীতে হামলা চালিয়ে তার বসতঘর ভাংচুর করে।

এসময় তারা বাধা দিলে সন্ত্রাসীদের হামলায় অলি হাওলাদার ও তার স্ত্রী কোহিনুর বেগম আহত হয় এবং তারা উজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে উজিরপুর মডেল থানায় অলি হাওলাদার বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।