মেইন ম্যেনু

নিষ্ক্রিয়দের গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখবে না বিএনপি

সরকারবিরোধী আন্দোলনে নিষ্ক্রিয়দের আসন্ন কাউন্সিলে বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখা হবে না বলে জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তবে যারা ‘কর্মে নিস্ক্রিয়, ধর্নায় সক্রিয়’ তাদেরকে দলে অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় রাখা হবে বলে জানান বিএনপির এই নীতিনির্ধারক।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদেন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয়তাবাদী কর্মজীবী দলের ৯ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতার সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন।

১৯ মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ কাউন্সিলকে সামনে রেখে এরই মধ্যে সব কাজ প্রায় শেষ করে এনেছে বিএনপি। উপ কমিটিগুলোও পুরোদমে তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার কাউন্সিলের লোগোও উন্মেচন করা হয়েছে। প্রায় শতভাগ কাউন্সিলরের তালিকা শেষ করার পাশাপাশি দলের শীর্ষ দুই পদ চেয়ারপারসন এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান পদে নেতাও নির্বাচন করেছে দলটি। এতে চেয়ারপারসন পদে খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান পদে তারেক রহমান পুননির্বাচিত হয়েছেন।

এর আগে উদ্যোগ নিয়েও ষষ্ঠ কাউন্সিল আয়োজন করতে পারেনি দলটি। যদিও দলের নেতাদের অভিযোগ, ‘সরকারের বাধার মুখে তাদের কাউন্সিল পণ্ড হয়ে গিয়েছিল।’ তবে এবার কাউন্সিল আয়োজন নিয়ে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ তারা।

গয়েশ্বর চন্দ্র জানান, কাউন্সিলরদের সার্বিক মতামতের ভিত্তিতে দলের গঠনতন্ত্র সংশোধন করা হবে। তারা যেভাবে চাইবেন সেভাবেই গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আসবে।

সংশোধিত গঠনতন্ত্রে কমিটির আকার বাড়বে না কমবে-এমন এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এই নীতি নির্ধারক বলেন, আগে কাউন্সিলররা তাদের মতামত দেবেন, এর ওপর ভিত্তি করেই পরবর্তী করনীয় ঠিক করা হবে। এতে আকার কেমন হবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

বিএনপি সমর্থিত ব্যানার ভিত্তিক সংগঠনগুলো আসন্ন কাউন্সিলে সহযোগী দল হিসেবে স্বীকৃতি পাচ্ছে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ওয়ান ইলেভেনের সময় যখন রাজনীতির সুযোগ ছিল না, তখন প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠান আয়োজন করে এসব সংগঠন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এসব সংগঠন বিএনপির স্বীকৃতির ওপর নির্ভরশীল নয়। নিজস্ব গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এসব সংগঠন চলবে।

এ সময় বিএনপির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি -জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধানসহ কর্মজীবী দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।