মেইন ম্যেনু

নিয়ে সাত মাসে পাঁচবার ইনজুরিতে পড়লেন মুস্তাফিজ

অভিষেকের মাত্র ১ বছর। এর মধ্যে ইনজুরি আর ইনজুরি। ইনজুরির কারণে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ টুর্ণামেন্ট মিস হয় মুস্তাফিজের। বিশ্বকাপের মত আসরে কয়েকটি ম্যাচে দেশের হয়ে খেলতে পারেননি মুস্তাফিজুর রহমান।

মাঠের বিস্ময় ইনজুরিতেও বিস্ময়! যা নিয়ে ভাবনার শেষ নেই টাইগারভক্তদেরও।

১. এ বছরের শুরুতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে কাঁধের ইনজুরিতে পড়েন মুস্তাফিজ। সিরিজের শেষ দুটি ম্যাচে দর্শকই ছিলেন তিনি। আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই এর কড়া মূল্য দিতে হয় মাশরাফিদের।

২. বছরের শুরুর দিকে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ শেষে ফেব্রুয়ারিতে এশিয়া কাপে খেলে বাংলাদেশ। এই ইনজুরিতে মিস করেন মার্চের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বেশ কয়েকটি ম্যাচ। বাংলাদেশ ফাইনালে গেলেও দলের সাথে ছিলেন না তিনি। মুস্তাফিজ থাকলে শিরোপা জিততে পারত বাংলাদেশ।

৩. এ বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে ছিলেন না। সৃষ্টি হয় অনিশ্চয়তা। পরে কয়েকটি ম্যাচে মাঠে নামেন তিনি। শেষের দিকে আবার দর্শক।

৪. আইপিএল আসরে প্রায় সবগুলো ম্যাচ খেলেন তিনি। তবে শেষ দিকে মাঠে নামেন ইনজুরিকে সঙ্গী করেই। ফাইনালে ওঠার ম্যাচে খেলেননি তিনি। ফাইনালে অবশ্য দলের সাথে ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান।

৫. এর পরে আরেক ব্যামো বেঁধেছে এবার। ইংল্যান্ডে কাউন্টি খেলতে যান মুস্তাফিজ। দুটি ম্যাচ খেলেই ইনজুরিতে তিনি। এখন শুধু তার সাসেক্স নয় বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড সিরিজ নিয়েও শঙ্কা জাগছে।