মেইন ম্যেনু

নূর হোসেনকে আনতে বেনাপোলের পথে পুলিশ

সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে গ্রহণ করতে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের একটি দল যশোরের বেনপোল স্থলবন্দরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে।

তাকে আজ রাতের কোনো এক সময়ে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করবে ভারত।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ সুপার জানান, সন্ধ্যার দিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের একটি দল বেনাপোলের উদ্যেশে রওনা হয়। ওই দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার। তবে কখন নূর হোসেনকে হস্তান্তর করবে ভারত তা বলেননি তিনি।

এদিকে কলকাতার দমদম কারাগারের জেল সুপার নবীন সাহা নিশ্চিত করেছেন, ভারতের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি দল সন্ধ্যা ৬টার দিকে নূর হোসেনকে নিয়ে বেনাপোলের উদ্দেশ্যে রওনা করেছে । বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেন, আজ রাতেই নূর হোসেনকে দেশে ফিরিয়ে আনা হতে পারে।

অন্যদিকে গতকাল বুধবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সচিবালয়ে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, যে প্রক্রিয়ায় ভারতীয় জঙ্গি সংগঠনের উলফা নেতা অনুপ চেটিয়াকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঠিক একই প্রক্রিয়ায় সাত খুন মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেনকেও ফিরিয়ে আনা হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ সাতজনকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। ঘটনার পর একে একে শীতলক্ষ্যা নদীতে নিহত সাতজনের লাশ ভেসে ওঠে। এ ঘটনায় দেশজুড়ে তোলপাড় হয়।

চলতি বছরের ৮ এপ্রিল সাত খুন মামলায় র‌্যাব-১১-এর তৎকালীন অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ, মেজর আরিফ, লে. কমান্ডার এম এম রানা এবং নূর হোসেনসহ ৩৫ জনকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন নারায়ণগঞ্জ গোয়েন্দা পুলিশ।

চাঞ্চল্যকর ওই হত্যাকাণ্ডের পরপরই ভারতে পালিয়ে যান প্রধান আসামি নূর হোসেন। এরপর ২০১৪ সালের ১৪ জুন কলকাতার দমদম বিমানবন্দরের কাছে কৈখালি এলাকার একটি বাড়ি থেকে দুই সহযোগীসহ তাকে গ্রেফতার করে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে মামলা হয়।

তার বিরুদ্ধে ভারত সরকারের দায়ের করা অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলা তুলে নেওয়ার আবেদন মঞ্জুর করে গত ১৬ অক্টোবর উত্তর চব্বিশ পরগণার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম সন্দীপন চক্রবর্তী আদেশ দেন।রাইজিংবিডি