মেইন ম্যেনু

নোয়াখালীর বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের ৬ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া

এম.এ আয়াত উল্যা, স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী : নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদী বিদ্যুৎ বিতরণ নির্বাহী প্রকৌশলীর অধীনে সরকারি রাজস্ব খাতে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসক, হাসপাতাল, স্বাস্থ্য বিভাগ, পুলিশ, গণপূর্ত সরকারি আবাসিক এলাকা, নোয়াখালী পৌরসভা, মসজিদ মন্দিরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ২০১৫ সালের ডিসেম্ব^র পর্যন্ত ৬ কোটি ৪ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে।

অফিস সূত্রে জানায়, এসব প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের বকেয়া টাকা না দেয়ায় প্রতি মাসে জেলা প্রশাসনের সমন্বয় সভায় আলোচনা ও রেজুলেশন হলেও আমলে নেয়নি প্রতিষ্ঠানের প্রধান কর্মকর্তারা। সরকারের বিদ্যুৎ খাতে ওইসব বকেয়া রাজস্ব আদায় না করতে পেরে প্রতি মাসে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ঢাকা বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় সচিবের কাছে প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে।

সাধারণ গ্রাহকদের ১০ হাজার টাকা বকেয়া থাকলে তাদের বাসা বাড়ি, দোকানের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, জেলা প্রশাসক, হাসপাতাল, স্বাস্থ্য বিভাগ, পুলিশ বিভাগের স্ব স্ব মন্ত্রণালয় বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস, টেলিফোন, মোবাইলসহ বিভিন্ন সংস্কার কাজে প্রতি জুনে লাখ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হলেও ওই সেবামূলক প্রতিষ্ঠান বছরের পর বছর বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রেখে ভুয়া ভাউচার সাজিয়ে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করছে। একই সময় নোয়াখালী পৌরসভাও কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করলেও পৌরসভার মেয়র মাসের পর মাস বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রাখছে।

অপরদিকে মসজিদ, মন্দিরগুলোর কমিটির সভাপতি ডোনারদের কাছ থেকে বিদ্যুতের রাজস্ব বকেয়া পরিশোধ করতে হাজার হাজার টাকা চাঁদা নিয়ে পরিশোধ করেনি। বিদ্যুৎ বকেয়া ৬ কোটি ৪ লাখ টাকার মধ্যে নোয়াখালী পৌরসভার ২ কোটি, পুলিশ প্রশাসন ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা, নোয়াখালী জেলা প্রশাসন ১৫ লাখ টাকা, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট ১৫ লাখ টাকা, সিভিল সার্জন স্বাস্থ্য বিভাগ ২৫ লাখ টাকা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মসজিদ মন্দির ২৯ লাখ টাকা, নোয়াখালী গণপূর্ত সরকারি আবাসিক এলাকা ৩০ লাখ টাকা ও নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল ৮৫ লাখ টাকা দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া রেখেছে।

এদিকে নোয়াখালী বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুর রহমান জানান, প্রতি মাসে ওই সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে তাদের বকেয়া পরিশোধ করতে বিল ও নোটিশ দিলেও আমলে নেয়নি তারা।