মেইন ম্যেনু

ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) আইন-২০১৫ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত সাপ্তাহিক বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

শফিউল আলম বলেন, ‘১৯৫০ সালে ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের একটি আইন ছিল। কিন্তু এটি পূর্ণাঙ্গ ছিল না। তাই নতুন করে এ আইনটি করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এ আইনে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর নামে একটি অধিদপ্তর করার কথা বলা হয়েছে। এর সদরদপ্তর থাকবে ঢাকায় এবং এ অধিদপ্তরের জনবল সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হবে। ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের কেউ যদি শৃঙ্খলা পরিপন্থি কাজে যুক্ত হন, তা হলে নিজ নিজ কর্তৃপক্ষের আইন দ্বারা শাস্তি নির্ধারিত হবে।’

বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যে টুরিজ্যম বিষয়ক একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। পর্যটনকে আরও গতিশীল করার জন্য এই এমইউ করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। মূলত এর অধীনে বৌদ্ধপ্রধান দেশগুলোর মধ্যে সংস্কৃতি বিনিময়ের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

এ ছাড়া জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এসএও) কর্তৃক বাংলাদেশের ‘ভাসমান বাগান কৃষি পদ্ধতি’কে ‘গ্লোবালি ইমপরটেন্ট এগ্রিকালচারাল হেরিটেজ সিস্টেম’ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের বিষয়টি মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়।

এ সম্পর্কে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘পানির ওপর কচুরিপানা দিয়ে ভাসমান পদ্ধতিতে যে শাকসবজি চাষ করা হয়, সেটার স্বীকৃতি আমাদের জন্য বড় অর্জন।’