মেইন ম্যেনু

পদ নেই, তবু বড় পদোন্নতি আসছে প্রশাসনে

বর্তমানে প্রশাসনে পদের চেয়ে কোনো কোনো স্তরে কর্মকর্তার সংখ্যা দ্বিগুণের বেশি। তাদের বেশির ভাগ পদোন্নতির পরও আগের পদে কর্মরত। এরই মধ্যে আবার তিন স্তরে ছয় শতাধিক কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দিতে যাচ্ছে সরকার। এ মাসে পদোন্নতির বিষয়টি চূড়ান্ত করবে সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ড (এসএসবি)।

পদোন্নতি দেয়ার এই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে গত ডিসেম্বরে। চলতি সপ্তাহে এ প্রক্রিয়া শেষ হবে বলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, শূন্যপদ না থাকলেও অতীতের ধারাবাহিকতা রক্ষায় যুগ্ম সচিব থেকে অতিরিক্ত সচিব পদে দেড় শতাধিক, উপসচিব থেকে যুগ্ম সচিব পদে দুই শতাধিক এবং সিনিয়র সহকারী সচিব থেকে উপসচিব পদে আড়াই শতাধিক কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হতে পারে।

ইতিমধ্যে কাগজপত্র যাচাই করে যোগ্য কর্মকর্তাদের তালিকা তৈরির কাজও প্রায় শেষপর‌্যায়ে।

মন্ত্রিপরিষদ-সচিব শফিউল ইসলামের নেতৃত্বাধীন সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) কয়েক দফা বৈঠকে এই তালিকা উপস্থাপন করা হয়েছে। এ ছাড়া আজ রবিবার ও পরদিন সোমবার অনুষ্ঠেয় সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের সভায় তালিকা চূড়ান্ত হওয়ার পর তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী বলেন, সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) বৈঠক চলছে। যথাসময়ে পদোন্নতি দেয়া হবে। তিনি বলেন, এটি একটি রুটিন কাজ। পদোন্নতি নিয়ম অনুযায়ী দেয়া হবে। যোগ্যরাই পদোন্নতি পাবেন।

সূত্র জানায়, ডিসেম্বর মাসে এসএসবির এক বৈঠকে জনপ্রশাসনে তিন স্তরের পদোন্নতি দেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর মৌখিক অনুমতি নেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী পদোন্নতির প্রক্রিয়া শুরু করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

তিন স্তরের মধ্যে অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে বিগত সময়ে বঞ্চিতদের মধ্য থেকে কিছু কর্মকর্তা এবার পদোন্নতি পেতে পারেন।

সূত্রমতে, অতিরিক্ত সচিব পদে ৮৫ ব্যাচকে বিবেচনায় আনা হচ্ছে। এ ব্যাচ থেকে মেধাবি ও দক্ষ কর্মকর্তাদের বিবেচনা করে শতাধিক কর্মকর্তার অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতির সম্ভাবনা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে মেধাক্রম বিবেচিত হবে না বলে জানা গেছে।

যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতিতে বিবেচনা করা হচ্ছে ৮৬ ব্যাচের বঞ্চিত কর্মকর্তা ছাড়াও নবম ও দশম ব্যাচের কর্মকর্তাদের। যদিও এ স্তরের পদোন্নতিতে ১১তম ব্যাচের কর্মকর্তারা বিভিন্ন পর্যায়ে তদ্বির করছেন; তবে তাদের এবার পদোন্নতির আওতায় নেয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিতে নারাজ এসএসবির বড় একটি অংশ ।

উপসচিব পর্যায়ে পদোন্নতিতে মূলত ২০তম ব্যাচ এবং ২১তম ব্যাচকে বিবেচনায় রাখা হচ্ছে। এ ছাড়া কিছুসংখ্যক কর্মকর্তা এ স্তরের পদোন্নতির আওতায় আসবেন, যারা বিগত সময়ে বঞ্চিত হয়েছেন।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রশাসনে শূন্য পদ না থাকায় এর আগে পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তারা আগের পদেই কর্মরত আছেন। এখন যাদের পদোন্নতি দেয়া হবে তাদের বেশির ভাগের অবস্থাও এমনই হবে।

প্রশাসনের অতিরিক্ত সচিব পদে ১৩০টি পদ থাকলেও বর্তমানে এ পদে কর্মকর্তা আছেন ২৬০ জন। তাদের মধ্যে ১০০ জনের মতো কর্মকর্তা আগের পদে কাজ করছেন।

৪৩০টি যুগ্ম সচিব পদের বিপরীতে কর্মকর্তা আছেন ৯০৭ জন। এর মধ্যে প্রায় আড়াই শ কর্মকর্তা আগের পদে অর্থাৎ উপসচিব পদে কাজ করছেন।

৮৩০টি উপসচিব পদের বিপরীতে আছেন এক হাজার ৩১৩ জন। এই স্তরে প্রায় ৫০০ কর্মকর্তা অতিরিক্ত।

এই তিন স্তরে পদের চেয়ে কর্মকর্তার সংখ্যা বেশি হলেও নিচের স্তরের সিনিয়র সহকারী সচিব ও সহকারী সচিব (মাঠপর্যায়ে সহকারী কমিশনার) পর্যায়ে এখনো অনেক পদ ফাঁকা।