মেইন ম্যেনু

পবিত্র কুরআন শরীফে বোমা বসিয়ে মানুষ মারার ফাঁদ

তাকফিরি সন্ত্রাসীগোষ্ঠী দায়েশ এবার পবিত্র কুরআন শরীফ বোমা বসিয়ে মানুষ মারার ফাঁদ তৈরি করছে। সিরিয়া এবং ইরাকে একের পর এক পরাজয়ের কারণে বিপর্যয়ের শেষ সীমায় পৌঁছে যাওয়া দায়েশ নিজেদের সন্ত্রাসী তৎপরতা অব্যাহত রাখার জন্য এ ন্যাক্কারজনক পথ বেছে নিয়েছে।

সিরিয়া এবং ইরাকে দায়েশ-বিরোধী মার্কিন নেতৃত্বাধীন কথিত অভিযানে জড়িত জোটের মুখপাত্র কর্নেল স্টিভ ওয়ারেন এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, দায়েশ গোষ্ঠী পর্যুদস্ত হতে শুরু করেছে এবং যেসব এলাকা এ গোষ্ঠীর হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে যেখানে থেকে পালানোর আগে মানুষ মারার জন্য বোমার ফাঁদ পেতে রাখছে। ফ্রিজসহ নানা আসবাব এবং সংসারের প্রয়োজনীয় জিনিসে বোমার ফাঁদ বসাতে দ্বিধা করছে না এ গোষ্ঠী। এমনকি কুরআন শরীফকেও তারা বোমা বসানোর ফাঁদ হিসেবে ব্যবহার করছে বলে জানান কর্নেল ওয়ারেন। ইরাকের রামাদিতে দায়েশমুক্ত এলাকায় এ ধরনের ঘটনা অনেকবারই ঘটেছে বলে জানান তিনি।

কর্নেল ওয়ারেন আরো বলেন, সন্ত্রাসীরা এ পর্যন্ত তাদের দখল করা ভূমির ৪০ শতাংশ হারিয়েছে। এছাড়া, তাদের লোকবল দ্রুত কমে যাচ্ছে এবং বাইরে থেকে লোক আসাও কমেছে। এ অবস্থায় শিশুদেরকে আরো বেশি করে যুদ্ধে নামতে বা অস্ত্র তুলে নিতে বাধ্য করছে দায়েশ।

অবশ্য সন্দেহ করা যায় না এমন বস্তু বা স্থানে বোমার ফাঁদ পাতার অংশ হিসেবে পবিত্র কুরআন শরীফকে ব্যবহার করা দায়েশের জন্য নতুন কিছু নয়। গত বছরের জুনে ইরাকের দিয়ালা প্রদেশ থেকে দায়েশ মুক্ত করার পর সেখানে বোমা বসানো অনেকগুলো কুরআন শরীফ পাওয়া গিয়েছিল। ইরাকি নিরাপত্তা বাহিনী এসব কুরআন শরীফ উদ্ধার করেছিল। রেডিও তেহরান।