মেইন ম্যেনু

তালায় বিনা ধান-১০ এর মাঠ দিবস

পরমানু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট কৃষকদের কল্যাণে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে

আব্দুর রহমান : বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট, বিনেরপোতা,সাতক্ষীরার আয়োজনে জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাষ্ট ফান্ডের অর্থায়নে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, সাতক্ষীরার সহযোগিতায় বিনা ধান-১০ এর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার বিকালে তালা উপজেলার খেসরা ইউনিয়নের শালিকা গুচ্ছ গ্রামে এ মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাতক্ষীরার উপ পরিচালক কাজী আব্দুল মান্নান।

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউটের (বিনা) সাতক্ষীরার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল আরাফাত তপুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ জি.এম.এ গফুর, তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সামছুল আলম, ১০ নং খেসরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান অধ্যাপক রাজিব হোসেন রাজু, মুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার সুজাত আলী সরদার, কৃষক মো: ইাদ্রিস আলী প্রমুখ।

মাঠ দিবেস প্রধান অতিথি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাতক্ষীরার উপ পরিচালক কাজী আব্দুল মান্নান তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট কৃষকদের কল্যাণে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে। লবণাক্ত বন্যা সহিষ্ণুসহ বিভিন্ন ভ্যারাটি জাঁতের ধানের বীজ কৃষকদের দৌড় গোড়ায় পৌছে দিয়েছে। কৃষকরাই দেশ গড়ার প্রকৃত সৈনিক। কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে।

বর্তমান সরকার কৃষকদের কল্যানে নানমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকারের উদ্যোগকে সফল করার জন্য বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা কৃষকের মুখে হাঁসি ফুটানোর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। বিনা ধান -১০ লবণ সহিষ্ণু জাত। এ ধানের ফলন এ জেলার ভাল হয়েছে। বিঘা প্রতি কৃষকরা ২০ থেকে ২২ মণ ধান পেয়েছেন।

কৃষকরা এ জাতের বীজ চাইলে বিনা কতৃপক্ষ বীজ সরবরাহ করবেন বলে অনুষ্ঠানে জানান। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারী বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আলমগীর কবির। এ মাঠ দিবসে ৩শতাধিক কৃষক-কৃষাণি উপস্থিত ছিলেন।