মেইন ম্যেনু

‘পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগানো যায় কি না জানা নেই’

রাজধানীর কড়াইল বস্তির আগুন পরিকল্পিত কি না এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগানো যায় কি না তা আমার জানা নেই। এটা কোনোভাবেই বিশ্বাসযোগ্য না। আগুনের প্রকৃত কারণটা ফায়ার সার্ভিসই খুঁজে বের করবে।’

শুক্রবার দুপুরে বস্তি পরিদর্শন শেষে পল্লীবন্ধু এরশাদ বিদ্যালয়ের মাঠে তিনি এসব কথা বলেন।

ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের বিষয়ে মেয়র বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের সংখ্যা নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন কথা শোনা যাচ্ছে। সিটি কর্পোরেশনসহ সাত-আটটি এনজিও প্রকৃতভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের গণনার কাজ শুরু করেছে। পুড়ে যাওয়া দোকান ও বাড়ির সংখ্যা নির্ণয়ের কাজ চলছে। তাদের শনাক্ত করে পুনর্বাসন করা হবে।

বিভিন্ন জায়গা থেকে আর্থিক সাহায্য নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যতদিন সম্ভব এখানে তাদের খাওয়ার ব্যবস্থা থাকবে বলে জানান আনিসুল হক।

সরু রাস্তার কারণে বস্তিতে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি প্রবেশে সমস্যা হয়েছে। নতুন করে বস্তি তৈরির সময় রাস্তার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে কি না- মেয়রের সামনে এমন প্রশ্ন রাখা হলে তিনি বলেন, যারা এখানে থাকে তাদের জন্য ঘর তুলে রাত কাটানো গুরুত্বপূর্ণ, রাস্তাটা গুরুত্বপূর্ণ না।

এর আগে বুধবার মধ্যরাতে কড়াইল বস্তিতে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট সাড়ে ৫ ঘণ্টা কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রায় দেড়শ একর জায়গা নিয়ে তৈরি কড়াইল বস্তিটি বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) মালিকানাধীন। কয়েকবার উচ্ছেদের চেষ্টা করলেও বস্তিবাসীর আন্দোলনের মুখে সরে আসে বিটিসিএল।

১ বছরের মধ্যে কড়াইল বস্তিতে এটি তৃতীয় অগ্নিকাণ্ড। সর্বশেষ আগুনের ঘটনাটি ঘটে একই বছরের ডিসেম্বর মাসের ৪ তারিখ। এদিন দুপুরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যায় প্রায় ৫০০’র বেশি ঘর। গৃহহীন হন সহস্রাধিক মানুষ।