মেইন ম্যেনু

পরিবারকে শিরোপা উৎসর্গ নেইমারের

ফাইনালের আগে থেকেই বলে আসছিলেন, নার্ভাসনেসে ভুগছেন তিনি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল বলে কথা। পূর্বসূরী স্বদেশী রোনালদো রিয়াল-বার্সার হয়ে অনেক খেলেছেন; কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জিততে পারেননি। নার্ভাসনেসের কারণও সেটা। তবে স্বপ্নের ম্যাচে স্বপ্নের গোলটা করেই ফেললেন নেইমার। একেবারে ফিনিশিং টাচটাই এলো তার পা থেকে। এমন ট্রফি জয়ের পর সেটা পরিবারকেই উৎসর্গ করণে তিনি।

জুভেন্তাসকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ছিনিয়ে নিয়েছে বার্সেলোনা। গোটা মওসুমটাই অসাধারণ খেলেছে মেসি-নেইমার-সুয়ারেজেরা। শনিবার দু’দলই দুর্দান্ত ফুটবল খেলেছে কিন্তু শেষপর্যন্ত ইউরোপ সেরার তকমা ছিনিয়ে নিয়েছে লুইস এনরিকের দল। ৩-১ জয় পেয়েছে কাতালান ক্লাবটি। ইভান র‍্যাকিটিচ ও লুইস সুয়ারেজের পাশাপাশি গোল পেয়েছেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার নেইমারও।

প্রথমার্ধে নেইমার বেশ কটি সুযোগ হাতছাড়া করায় হয়তো সাময়িক আক্ষেপ হয়েছিল বার্সা সমর্থকদের। কিন্তু ইনজুরি টাইমে অন্তিম মুহূর্তে জুভদের কফিনে শেষ পেরেকটা ঠুকলেন নেইমারই। ম্যাচের পর তিনি বলছেন, ‘আমরা গোটা ম্যাচেই ভালো ফুটবল উপহার দিয়েছি। শেষপর্যন্ত জয়টা আমরাই পেলাম। প্রথমত এই জয়ের জন্য দলের সতীর্থদের শুভেচ্ছা জানাতে চাই। পাশাপাশি কোচের বিশাল ভূমিকা রয়েছে আমাদের এই কৃতিত্বের জন্য। অবশ্যই এই জয় আমার পরিবারকে উৎসর্গ করছি।’

শিরোপা জিতলেও প্রতিপক্ষ জুভেন্তাসের উচ্চসিত প্রসংশা করলেন নেইমার। বললেন, ‘অসাধারণ খেলেছে তারা। জুভেন্তাস সত্যিই সেরা একটি দল। এই দলটিতে রয়েছেন সেরা সেরা সব ফুটবলার। আমরা নিজেদের খেলাটাই খেলতে চেষ্টা করেছি এবং দিন শেষে বিজয়ী দলটিতেই দেখতে পেলাম নিজেকে।’

এই মওসুমে বার্সার হয়ে চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স এসেছে নেইমারের পা থেকে। ৩৯ ম্যাচে গোলের হাফসেঞ্চুরিও করা হয়ে গিয়েছে তার।



(পরের সংবাদ) »