মেইন ম্যেনু

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গুলি চালাতে বাধ্য হয় বিজিবি

পিরোজপুরে মঠবাড়িয়ায় নির্বাচনী সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে আনতেই বিজিবি গুলি চালাতে বাধ্য হয় বলে জানিয়েছেন বাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর পিলখানায় বিজিবির সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

বিজিবির সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য মোবাইল সেবা উদ্ধোধন উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, এটা ইচ্ছাকৃতভাবে নয়, দায়িত্ব পালনকালে যে ধরনের প্রক্রিয়া মানা দরকার তার প্রত্যেকটা মেনেই গুলি চালানো হয়েছে। তবে এমন ঘটনা অনাকাঙ্খিত ও এমন ঘটনা ঘটবে কখনও প্রত্যাশিত নয়।

আইন শৃংঙ্খা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কখনো কখনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যদি পরিস্থিতি বাধ্য করে ভবিষ্যতেও গুলি চালাতে বিজিবি বাধ্য হবে বলে যোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, কোন জায়গায় স্থানীয় লোকজন অহযোগিতা করলে আর কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায়ভার আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর উপর বর্তায় না। এ পরিস্থিতি যারা সৃষ্টি করছে তাদের উপর এর দায়ভার বর্তায়।

বিজিবি গুলি করতে চায়নি দাবি করে আজিজ বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে স্থানীয় লোকজন সহযোগিতা না করায় এ ধরনের ঘটনার অবতারণা হয়েছে ।

গত মঙ্গলবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের গুলিতে পাঁচজন নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয় আরো অনেকে।

ধানীসাফা ইউনিয়নের সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে তিনজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। তারা হলেন- ফজলু মাতুব্বরের ছেলে সোহেল (২৫), আবদুল মজিদের ছেলে শাহাদাত (৩০) ও সাইদুল মৃধার ছেলে কামরুল মৃধা (২৫)। এদের সবার বাড়িই উপজেলার হরিণ তলায়। এছাড়া বুড়িরচর গ্রামের গুরুতর আহত বেল্লাল (৩০) ও সোলায়মানকে (২৮) চিকিৎসার জন্য বরিশালে নেয়ার পথে মারা যান। নিহতরা সবাই নৌকার সমর্থক বলে জানা গেছে।

জানা যায়, উপজেলার ধানীসাফা ইউনিয়নের সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে আগে থেকেই নৌকার সিল মারা বেশকিছু ব্যালট বাতিল বলে ঘোষণা করেন দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট। কিন্তু ব্যালট বাতিলে বাধা দেয় নৌকার সমর্থকরা। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট কাজী জিয়াউলকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয় বলে জানা যায়। খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এসে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় বিজিবির গুলিতে পাঁচজন নিহত হন। আহত হন আরো অনেকেই। ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশেই গুলি চালানো হয়েছে বলে জানা গেছে।