মেইন ম্যেনু

‘পরিস্থিতি সামলাতে না পারলে গণবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে সরকার’

চলমান ভয়াবহ পরিস্থিতিতে শক্ত হাতে লাগাম টেনে না ধরলে সরকারকে গণবিচ্ছিন্ন ও করুণ পরিণতির সম্মুখীন হতে হবে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী ওলামা লীগ নেতৃবৃন্দ।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে আওয়ামী ওলামা লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাফেজ মাওলানা আব্দুস সাত্তার, সাধারণ সম্পাদক কাজী মাওলানা আবুল হাসান শেখ শরিয়তপুরী ও গবেষণা পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা শহীদুল ইসলাম এ মন্তব্য করেন।

বিবৃতিতে ওলামা লীগ নেতৃবৃন্দ বলেন, সোনার বাংলাকে জঘন্য অপকর্মের লীলাভূমি ও ধর্মহীন জাতি বানানোর জন্য লাখো শহীদদের রক্ত ও মা-বোনদের ইজ্জতের বিনিময়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন করা হয়নি। চলমান ভয়াবহ পরিস্থিতির লাগাম শক্ত হাতে টেনে না ধরলে সরকার গণবিচ্ছিন্ন হবে এবং করুণ পরিণতির সম্মুখীন হতে হবে।

তারা বলেন, সন্ত্রাস, দুর্নীতি, সুদ-ঘুষ, মাদকের অপব্যবহার, নারী ধর্ষণ, নারী ও শিশু পাচার করে হত্যা, যৌতুকের দাবিতে নারী নির্যাতন, স্ত্রী হত্যা, বেপরোয়া গাড়ি চালকদের খামখেয়ালীপনার কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় অসংখ্য মানুষের প্রাণহানী, পঙ্গুত্ববরণ, অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় ও জঘন্যভাবে হত্যা, চাঁদাবাজি, তদবীরবাজি, সুযোগ বুঝে নিরীহ মানুষদের হয়রানী, চিকিৎসক কর্তৃক রোগীর সতিত্বহরণ, শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থীর ইজ্জত নষ্ট, ইভটিজিং, ছাত্র কর্তৃক শিক্ষক লাঞ্ছিত, জোরপূর্বক ধরে নিয়ে হিজরা বানানো, নামে-বেনামে বিভিন্ন অপকৌশলে সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন, ভূয়া সত্যায়ন, ভূয়া সার্টিফিকিট প্রদানের প্রতিযোগিতা, ভূয়া চিকিৎসক, ভূয়া ক্লিনিক, জাল টাকার কারখানা, জাল ভিসা তৈরির কারখানা, বিভিন্ন হোটেল ও ফ্ল্যাট বাড়িতে দেহ ব্যবসা, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, প্যাথডিন, গাঁজা, মদ-জুয়া, ইত্যাদি ঘটনা অহরহ প্রচারিত হচ্ছে। তাছাড়া পুরুষদের পাশাপাশি একশ্রেনির অসৎ মহিলাও এসব অপকর্মে লিপ্ত হচ্ছে। র‌্যাব পুলিশকে ম্যানেজ করে, ঘুষ প্রদান করে এসব অপকর্ম করা হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে। এভাবে দেশ ও জাতির শত্রুরা নির্বিগ্নে বেপরোয়াভাবে এসব অপকর্ম চালিয়ে দেশ এবং সরকারকে অকার্যকর করার ষড়যন্ত্র করে চলেছে।

বিবৃতিতে তারা আরো বলেন, ডিবি-র‌্যাব- গোয়েন্দা-বিজিবি এবং পুলিশের পোশাক পরে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা-উপজেলায় ভয়ভীতি দেখিয়ে রীতিমত নিয়মিত চাঁদা আদায়ের সংবাদ প্রচারিত হচ্ছে। তাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট অনুরোধ ‘শক্ত হউন। ছাড় দেবেন না। সিন্ডিকেটকে প্রশ্রয় দিবেন না।

ওলামা লীগ নেতৃবৃন্দ বলেন, কিছু দলীয় লোকসহ সরকারি দলের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা এসব অপকর্ম প্রতিনিয়ত চালিয়ে যাচ্ছে তাদের ছাড় দেয়ার কোনো সুযোগ রাখা যাবেনা। প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের নীতি-নির্ধারক, প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গের নিকট আমাদের প্রশ্ন ‘অপকর্মের খলনায়কেরা সকলেই কি সরকার সমর্থিত কর্মী? নাকি অন্যান্য সংগঠন থেকে অনুপ্রবেশকারী সুবিধাবাদী ? এদের বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে। এখন থেকে যদি অপকর্মের বিষয়গুলোকে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট বিচারের ব্যবস্থা করা না হয়- তাহলে অদূর ভবিষ্যতে সরকার এবং আইনের প্রতি এই দেশের মানুষ শ্রদ্ধা হারিয়ে ফেলবে।