মেইন ম্যেনু

পরীক্ষার জন্য মহাকাশে আগুন লাগাবে নাসা!

মহাকাশে প্রায় মাধ্যাকর্ষণহীন ও বায়ুহীন পরিবেশে কেমনভাবে আগুন ছড়ায়, তার পরীক্ষা করতে চলেছে নাসা। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থার অন্তর্গত জন এইচ গ্লেন রিসার্চ সেন্টারের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, মহাকাশে একটি বিশালকায় আগুন ধরিয়ে এই পরীক্ষা করা হবে।

পরীক্ষার নাম দেয়া হয়েছে ‘স্পেসক্র্যাফট ফায়ার এক্সপেরিমেন্ট বা সাফায়ার’। জানা গিয়েছে, আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে (আইএসএস) বসবাসকারী নভশ্চরদের জন্য বিভিন্ন পণ্য বহনকারী ‘অর্বিটাল/এটিকে সিগনাস কার্গো মিশন’ মহাকাশযানের সঙ্গে এই অগ্নি-পরীক্ষার সামগ্রীও পাঠানো হবে। গ্লেন জানিয়েছেন, প্রথমে সিগনাস আইএসএস-এ বিভিন্ন পণ্য সরবরাহ করবে।

এরপর ফেরার পথে সিগনাস সাফায়ারকে মহাকাশে নিক্ষেপ করবে। সাফায়ারের মধ্যে থাকবে একটি বাক্স, যার মধ্যে তুলো এবং ফাইবারগ্লাসের দিয়ে তৈরি একটি ‘কম্পোসিট’ বা মিশ্রণ ভরা হবে। সেখানেই আগুন ধরানো হবে। এরপর সিগনাস সেই তথ্য রেকর্ড করে পৃথিবীতে পাঠাবে। নাসার দাবি, মহাকাশে আগুনের চরিত্র সবসময়ই অস্থির থাকে। তা ভালভাবে বুঝতেই এই পরীক্ষার প্রয়োজন।

নাসার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, চলতি বছরে তিনটি সাফায়ার পরীক্ষা করা হবে। প্রথম সাফায়ার উৎক্ষেপণ হবে আগামী ২২ মার্চ। অ্যাটলাস-৫ রকেটে চেপে সিগনাস স্পেসক্র্যাফটে আইএসএস-এর জন্য রিসাপ্লাই বা অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সরবরাহ করবে। তার সঙ্গেই এবার জোড়া হবে সাফায়ার পরীক্ষা।

কিন্তু এই পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা কোথায়? নাসা জানিয়েছে, যে মিশ্রণে আগুন লাগানো হবে, তা মূলত মহাকাশযান নির্মাণে ব্যবহৃত হয়। ফলে, যেখানে অক্সিজেনের মাত্রা অত্যন্ত কম, মাধ্যাকর্ষণ শক্তি নগন্য—এমন পরিবেশে আগুনের চরিত্র, গতিপ্রকৃতি, ব্যাপ্তি সম্পর্কে জানতে পারলে, ভবিষ্যতের মহাকাশযান নির্মাণে সুবিধে হবে।-এবিপি লাইভ