মেইন ম্যেনু

পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে ইমিগ্রান্টের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ

জহুর উল হক, লিসবন (পর্তুগাল) থেকে : রবিবার ৩রা জুন দুপুরে পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে অনুষ্টিত হয় এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ। প্ল্যাটফর্ম ফর ইমিগ্রেশন এন্ড সিটিজেনশিপ এর ব্যানারে বিভিন্ন দেশের হাজারো অবিভাসীদের নিয়ে এ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় । গত ২১শে মার্চ সেফ ডিরেক্টর পর্তুগাল কর্তৃক জারি কৃত এক আদেশে ৮৮ আর্টিকেল এ ব্যাপক পরিবর্তন করা হয় যার ফলে ইমিগ্রেসন প্রত্যাশিত দের স্বর্গরাজ্য বলে ক্ষেত পর্তুগালের দুয়ার ও প্রায় বন্ধ হয়ে যায় । ফিনান্স নাম্বার ও সোশাল নাম্বার প্রদান করা, রেসিডেন্ট কার্ড ইস্যু করা, কান্ট্রি আউট নামক বহিস্কার করন আইন শিথিল করা, ইমিগ্রান্ট এবং পর্তুগীজ নাগরিকদের মাঝে সম অধিকার আদায়ের লক্ষে এ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয় ।

প্ল্যাটফর্ম ফর ইমিগ্রেশন এন্ড সিটিজেনশিপ এর ব্যানারে বিভিন্ন অংগসংগঠন যুক্ত হয় এর মধ্যে সলিডারিটি ফর ইমিগ্রান্ট লিসেবন, ইপিবিএ, এসোসিয়েসাও ডিফিসা দেস ইমিগ্রান্ট, ওলাত্ত ভিভো, নোয়া এ ইউরোপা ফোঁরটালিজা, নোয়া রেসিডেন্টস নেপালিজ এসোসিয়েশন, নেম মৌরস নেম ফ্রন্টটেরিস, নিনজুয়েম ই ইল্লিগাল, সিম ডিবোইটোস ইগুয়ইস টুডুস পারডিভিওস l

এই প্রতিবেদক এর সাথে এক সাক্ষাতকারে জেসিকা লোপেজ সলিডারিটি ফর ইমিগ্রান্ট লিসেবন এর এক্টিভিস্ট বলেন ২১এ মার্চ এরপর থেকে ইমিগ্রান্ট দের সাথে যে আচরণ করা হচ্ছে তার প্রতিবাদে ইমিগ্রান্টদের সাথে একত্ততা ঘোষণা করে ইমিগ্রান্টদের অধিকার আদায়ের লক্ষে তাঁর সংগঠন কাজ করে যাবে |

ওলাত্ত ভিভো নামক সংগঠনের ম্যানেজার জোয়াও সিলভা বলেন তাঁর সংগঠন ইমিগ্রান্টদের কাজের সম অধিকার প্রতিষ্ঠা সহ ইমিগ্রান্টরা যাতে করে কোন বর্ণ বৈষম্যের শিকার না হয় সে দিকে খেয়াল রাখে তাঁর সংগঠন ও ইমিগ্রান্টদের অধিকার আদায়ের জন্য আজকের এই কর্ম সুচিতে একত্ততা প্রকাশ করেছে l

নেপালি এসোসিয়েশন অব পর্তুগাল এর প্রেসিডেন্ট ভিম কে সি কামাল বলেন ২০ জুন তারা হোম মিনিস্টার অব পর্তুগIল এর সাথে দেখা করেন এবং স্বারক লিপি প্রদান করেন হোম মিনিস্টার ইমিগ্রান্টদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেন। তাঁদের ভবিষ্যত কর্ম পরিকল্পনা কি জানতে চাইলে তিনি বলেন আজকের পর সরকারে কি ব্যাবস্থা গ্রহণ করে এবং তা কতটুকু ইমিগ্রান্টদের জন্য সহায়ক তার উপর ভিত্তি করে ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা নেয়া হবে l

কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ কারী মোঃ রাসেল আহম্মেদ বলেন আজ চার মাস যাবত কন্টাক সহ কাজ করছি, লিগাল এন্টি থাকা সত্বেও সোসাল নাম্বার বের না হত্তয়ায় সরকার যেমন রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তেমনি আমিও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি | তিনি আশা করেন সরকার দ্রুত সমস্যা সমাধানে আন্তরিক হবেন |

পর্তুগালের রাজধানী লিসবনের মাতৃমনিজ পার্ক থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয় এবং তা প্রাচাদা কমার্চিতে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলোত্তর সমাবেশে বক্তারা ফিনান্স নাম্বার ও সোশাল নাম্বার প্রদান করা, রেসিডেন্ট কার্ড ইস্যু করা, কান্ট্রি আউট নামক বহিস্কার করন আইন শিথিল করা, ইমিগ্রান্ট এবং পর্তুগীজ নাগরিক মাঝে সম অধিকারের দাবি জানিয়েছেন এবং তাঁরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন সরকার ইমিগ্রান্টদের প্রতি সদয় ও নমনীয় হবে ।