মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের জয়

জেসন রয় ও জো রুটের জোড়া অর্ধশতে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪৪ রানের সহজ জয় পেয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। আর এ জয়ে পাঁচ ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল মরগানের নেতৃত্বাধীন দল।

বুধবার সাউদাম্পটনে প্রথম ওয়ানডেতে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলী। তবে শুরুটা ভালো হয়নি সফরকারীদের। দলীয় ২৫ রানে বিদায় নেন আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে বিধ্বংসী ইনিংস খেলা শারজিল খান। দ্রুত তাকে অনুসরণ করেন টপ অর্ডারের আরেক ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজ।

এরপর আজহারের সঙ্গে ৬১ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন বাবর আজম। নিজের ইনিংসটা খুব বেশি বড় করতে পারেনি বাবর। ব্যক্তিগত ৪০ রান করে আদিল রশিদের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন তিনি। তবে এক প্রান্ত আগলে রেখে আজহার তুলে নেন নিজের অর্ধশত। লেগ স্পিনার রশিদের ঝোলানো বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ঠিক মতো পারেননি। ব্যাটের কানায় লেগে শর্ট থার্ড ম্যানে উঠা সহজ ক্যাচ তালুবন্দি করতে কোনো ভুল করেননি মইন আলি। ১১০ বলে খেলা আজহারের ইনিংসটি থামে ৮২ রানে। শেষ পর্যন্ত নিজেদের রানটাকে তারা ৬ উইকেটে ২৬০ রানের বেশি নিতে পারেনি।

পাকিস্তানের দেওয়া লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দ্রুত অ্যালেক্স হেলসকে হারানো ইংল্যান্ড প্রতিরোধ গড়ে রয় ও রুটের ব্যাটে। দ্বিতীয় উইকেটে এই দুই জনে গড়েন ৮৯ রানের জুটি। শুরুতেই ভাঙতে পারত এই জুটি। মোহাম্মদ আমিরের বলে ছুটে গিয়ে রয়ের ক্যাচ গ্লাভসবন্দি করতে পারেননি সরফরাজ আহমেদ।

শেষ পর্যন্ত রয়ের দাপুটে ইনিংস শেষ হয় মোহাম্মদ নওয়াজের বলে বাবর আজমের দারুণ ক্যাচে পরিণত হয়ে। ৬টি চার ও একটি ছক্কায় ৫৬ বলে ৬৫ রান করেন ম্যাচ সেরা এই খেলোয়াড়। আর টানা তৃতীয় অর্ধশতক পাওয়া রুট ফিরেন ৭২ বলে ৬টি চারে ৬১ রান করে। ইংল্যান্ড ইনিংসের ৩৪ ওভার শেষে বৃষ্টির জন্য আধা ঘণ্টা খেলা বন্ধ থাকে। খেলা শুরু হলে তাদের নতুন লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৮ ওভারে ২৫২ রান। কিন্তু মাত্র তিন বল খেলা হওয়ার পর আবার বৃষ্টি নামলে সেখানেই ম্যাচের সমাপ্তি হয়।

৩৪.৩ ওভারে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেটে ১৯৪ রান। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে জয়ের জন্য তখন তাদের দরকার ছিল ১৫১ রান। সে সময় মর্গ্যান ৩৩ ও বেন স্টোকস ১৫ রানে অপরাজিত ছিলেন। ফলে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।



(পরের সংবাদ) »