মেইন ম্যেনু

পাকিস্তান মনে করে, যুদ্ধের ঝুঁকি নেবে না ভারত

পাকিস্তান মনে করে, এই মুহূর্তে যুদ্ধের ঝুঁকি নেবে না ভারত।

তাদের মতে, পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধে গেল ভারতের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে যাবে এবং বৈশ্বিকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে ভারত।

ডন অনলাইনের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের এক খবরে সোমবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পাকিস্তানকে কড়া ভাষায় হুঁশিয়ার করার পর এর জবাব দেওয়ার জন্য কাজ করছেন পাকিস্তানের কূটনীতিক ও বিশেষজ্ঞরা। তাদের দাবি, পাকিস্তানকে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে বিচ্ছিন্ন করার যে ঘোষণা দিয়েছে ভারত, তা মূলত মিথ বা কল্পিত বিষয়। এ কাজ করতে গেলে উল্টো ভারতই বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।

ডনের এক প্রতিবেদনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কূটনীতিকের বক্তব্য উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, ‘কোনো যুদ্ধ হবে না। আমাদের এ ধরনের কোনো ইচ্ছা নেই এবং ভারত বুঝতে পেরেছে, এই মুহূর্তে যুদ্ধ হলে ভারতের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে যাবে।’

উল্লেখ করার মতো বিষয় হলো- ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ায় গত সপ্তাহে পাকিস্তানের শেয়ারবাজারে ধস নামে। বিষয়টিকে এড়িয়ে গিয়ে পাকিস্তানই দাবি করছে, যুদ্ধ হলে ধ্বংস হবে ভারতের অর্থনীতি।

ভারত শাসিত কাশ্মীরের উরি সেনাঘাঁটিতে পাকিস্তান থেকে অনুপ্রবেশকারী সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে হত্যা করে ১৯ ভারতীয় সেনাকে। ভারত অভিযোগ করে, এ হামলার পেছনে পাকিস্তানের হাত রয়েছে। পাকিস্তানকে তারা সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ঘোষণা করে। প্রধানমন্ত্রী মোদি পাকিস্তানকে উচিত জবাব দেওয়ার কথা বলেন। এ নিয়ে জাতিসংঘেও দুই দেশ পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে।

রোববার সাপ্তাহিক রেডিও ভাষণে মোদি উরি সেনাঘাঁটির হামলা নিয়ে কথা বলার সময় ১৯৬৫ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের প্রসঙ্গ টেনে আনেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রতি জনগণকে আস্থা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

মোদি বলেন, ‘দেশে জনগণের যে ক্ষোভ আছে, তার মূল্য অনেক। এটি জনগণের জেগে ওঠার প্রতীক।’ তিনি আরো বলেন, এই ক্ষোভের অর্থ হলো- কিছু করো… ১৯৬৫ সালে যখন যুদ্ধ বাধে (পাকিস্তানের সঙ্গে), তখন লাল বাহাদুর শাস্ত্রী দেশের হয়ে নেতৃত্ব দেন। এখন দেশে উপলব্ধি ও ক্ষোভ যেন তেমনই।’

পাকিস্তানের একজন জ্যেষ্ঠ কূটনীতিক বলেন, ‘ভারত ভুল উদাহরণ তৈরি করছে, যা সবাইকে আঘাত করবে। ভারত যদি এ পথে চলতে থাকে, তাহলে পাকিস্তানের পরিবর্তে তারাই বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।’