মেইন ম্যেনু

পাবলিক টয়লেট ব্যবহারের আগে এই বিষয়গুলো অবশ্যই মাথায় রাখবেন!

প্রকৃতির ডাক যখন তখন আসতে পারে। এতে কারো হাত নেই। একবার ডাক দিয়ে বসলে আর উপায় নেই। লজ্জা না করে প্রকৃতির ডাকে ছাড়া দেওয়ায় ভালো। তবে এসময় রোগ সংক্রমণ থেকে নিজেকে বাঁচাতে পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করার আগে যে যে বিষয়গুলো আপনার অবশ্যই মাথায় রাখা উচিত-

প্রথমত, এক সারির মধ্যে থাকা মাঝ খানের টয়লেটগুলো কখনই ব্যবহার করবেন না। কারণ, সাইকোলজিকাল সাইন্স নামের জার্নালে প্রকাশিত গবেষণার দাবি, সাধারণত মানুষ পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করার সময় ‘সেন্টার প্রেফারেন্স’কে সবথেকে বেশি অগ্রাধিকার দেয়। আর সেই জন্যই এক সারির মধ্যে থাকা মাঝখানের টয়লেটগুলো সবথেকে বেশি ব্যবহৃত হয় এবং ক্রমেই তা রোগব্যাধির আঁতুড় ঘর হয়ে ওঠে।

দ্বিতীয়ত, টয়লেট ব্যবহারের সময় চেষ্টা করুন ব্যবহৃত শৌচালয় থেকে নিজেকে যতটা সম্ভব দূরে রাখা এবং পারলে তা একবার জল দিয়ে পরিষ্কার করে ব্যবহার করা।

তৃতীয়ত, চেষ্টা করুন হাতের আঙুলের বদলে টিস্যু পেপার এবং হ্যান্ড ফ্ল্যাশ ব্যবহার করা।

চতুর্থ, টয়লেট করার পর অবশ্যই ভালো করে হাত পরিষ্কার করুন।

মহিলাদের ক্ষেত্রে : পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করার ক্ষেত্রে পুরুষরা যে ধরনের মনস্তত্ত্বে ঘোরাফেরা করে থাকে মহিলারা হাঁটেন ঠিক তার উল্টো পথে। গবেষণার দাবি, মহিলারা পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সবসময় শৌচকক্ষের দরজা থেকে সবথেকে দূরের টয়লেট ব্যবহার করে থাকেন। আর এই কারণেই গোপনীয়তার আশ্রয় নিতে গিয়ে সবথেকে বেশি রোগ সংক্রমণের খপ্পরে পরে মহিলারা।

পুরুষদের ক্ষেত্রে : শৌচকক্ষের দরজার কাছের টয়লেট এড়িয়ে চলুন। চেষ্টা করুন দূরের টয়লেট ব্যবহার করার। কারণ পুরুষরা বেশিরভাগ সময়েই সবথেকে কাছের টয়লেট ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। যাতে দ্রুত কাজ সেরে বেরিয়ে আসা যায়। আর সেই কারণে এই টয়লেটগুলো সংক্রামিত রোগের বাসা হয়ে ওঠে।






মন্তব্য চালু নেই